মীরট: দেশ জুড়ে বাড়ছে দূষণ। আর তা আটকাতে যজ্ঞের পথে হাঁটছেন সাধুরা। সে যজ্ঞ না হয় করতেই পারেন। তাই বলে পোড়ানো হবে ৫০০ কুইন্টাল কাঠ! তাতেই তো দূষণ বেড়ে যাবে বেশ খানিকটা। কিন্তু কোনও পলিসি না থাকায় সেই যজ্ঞ আটকানোও সম্ভব হচ্ছে না।

মীরটের ভাইশালি মাঠে এই যজ্ঞ করতে জড় হয়েছেন বারানসির ৩৫০ ব্রাহ্মণ। রবিবার থেকেই জড় হয়েছেন তাঁরা। ন’দিন জুড়ে চলনে সেই মহাযজ্ঞ। আমগাছের ৫০০ কুইন্টাল কাঠ পুড়বে সেখানে। ১২৫x১২৫ স্কোয়্যার ফুট যজ্ঞশালা তৈরি করা হয়েছে। রয়েছে ১০৮টি কুণ্ড। এসব দেখেশুনেও থুঁটো জগন্নাথ উত্তরপ্রদেশের পলিউশন কন্ট্রোল বোর্ড। তাদের বক্তব্য, ‘এটা একটা ধর্মীয় বিষয়। এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কোনও বিশেষ পলিসি নেই।

Advertisement

পলিউশন কন্ট্রোল বোর্ডের রিজিওনাল অফিসার আরকে ত্যাগী বলেন, ‘এত পরিমাণ কাঠ একসঙ্গে পোড়ালে স্বাভাবিকভাবেই দূষণ ছড়াবে। কিন্তু এটা আটকানোর কোনও পলিসি নেই। তাই কিছু করা সম্ভব নয়।

গেরুয়া বসন পরে যজ্ঞকুণ্ডের চারপাশে বসে রয়েছেন সাধুরা। ধোঁয়ায় ভরে যাচ্ছে পুরো জায়গাটা। শ্রী আয়ুতচণ্ডী মহাযজ্ঞ সমিতির ভাইস প্রেসিডেন্ট গিরিশ বনশল জানিয়েছেন, ‘গোরুর দুধ থেকে তৈরি ঘি-তে পোড়ানো হবে আম কাঠ। কারণ হিন্দু ধর্মে বিশ্বাস করা হয় যজ্ঞই বাতাসকে শুদ্ধ করে। এই নিয়ে কোনও গবেষণা হয়নি, তাই কোনও বিজ্ঞানভিত্তিক প্রমাণ নেই। তবে যজ্ঞ শেষ হয়ে গেলে শুদ্ধ হাওয়া পাবেন শহরবাসীরা।’

৫০০ কুইন্টাল কাঠ ছাড়াও সেখানে থাকছে ১০০ কুইন্টাল তিল, ৬০ কুইন্টাল চাল, ৩০ কুইন্টাল বার্লি আর ১৫০ বাক্স ঘি।

----
--