মুসলিম মৃতদেহের সৎকার করল হিন্দুরা

স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: কথায় বলে সবার উপর মানুষ সত্য৷ মানব সেবাকেই পরম ধর্ম বলে মানেন মালদহের এক অনামী গ্রামের বাসিন্দারা৷ সেখানে নেই ধর্মে ধর্মে কোনও ভেদাভেদ৷ নেই মানুষে মানুষে কোনও বিভেদ৷ আছে শুধুই সম্প্রীতি৷

এই সম্প্রীতির পথেই ফের নজির গড়ল মালদহ জেলার এই অনামী গ্রাম৷ এক মুসলিম ব্যক্তির সৎকারের কাজে এগিয়ে এল হিন্দুরা৷ রাম নবমীর আবহের মাঝেই এই ছবি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তা দিয়ে গেল বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল৷

সদর শহর থেকে ৫২ কিলোমিটার দুরে অবস্থিত মালদহ জেলার মালতিপুর গ্রামে এটা কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়৷ এর আগে এই গ্রামের বাসিন্দারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বহু নজির রেখে গিয়েছেন৷ সাম্প্রতিক ঘটনাটি মঙ্গলবারের৷ এই গ্রামের বাসিন্দা আরফুন বেওয়ার দীর্ঘদিন বার্ধ্যকজনিত রোগে ভুগছিলেন৷

- Advertisement -

মঙ্গলবার সকালে মারা যান তিনি৷ তাঁর প্রতিবেশীরা সকলেই হিন্দু সম্প্রদায়ভুক্ত৷ আরফুনের মৃত্যুর খবর পাওয়া মাত্রই বেওয়ার পরিবারের মদতে এগিয়ে আসেন হিন্দুরা৷ তাঁর শেষ যাত্রার যাবতীয় আয়োজনে হাত লাগান সুভাষ চক্রবর্ত্তী, শ্যামল রাজবংশী ও সায়নরা৷ কবরস্থান অবধি যান তারা৷ এমনকী সমাধিতে মাটিও দেন তারা৷

মালতিপুর গ্রামে এই দৃশ্য বড়ই পরিচিত৷ এমন কাজের সাক্ষী আগেও থেকেছে এই গ্রাম৷ সুভাষ, সায়ন ও শ্যামলরা জানালেন, এক সম্প্রদায়ের বিপদে অপর সম্প্রদায়ের লোকেরা ছুটে যাবে এটাই তো স্বাভাবিক৷ এই কাজের মধ্যে কোনও ছুৎমার্গ খুঁজে পান না তারা৷ একই বক্তব্য মুসলিম সম্প্রদায়ের সাজ্জান শেখের৷ তিনি জানান, এলাকার কোনও হিন্দুর মৃত্যু হলে তারাও সৎকারের কাজে হাত লাগান৷ শশ্মানেও যান৷ মানুষের বিপদে পাশে দাঁড়ানোকে অগ্রাধিকার দেন তারা৷

মালতিপুর কেন্দ্রের বিধায়ক অলবিরুনী জুলকার লাইন বলেন, এই গ্রামের মানুষ কোন ধর্মকে অসন্মান করে না। এখানে কোন সাম্প্রদায়িকতার স্থান নেই। সকলেই এক। এই ধরনের নজির আমাদের গ্রামে সব সময় দেখা যাবে। গ্রামের মানুষদের মধ্যে অদ্ভুত মিলই তাদের মধ্যে একতা বজায় রেখেছে।

Advertisement ---
---
-----