নয়াদিল্লি: হিন্দুদের তালিবানের সঙ্গে তুলনা করে আরও একবার বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন রাজীব ধাওয়ান৷ পেশায় আইনজীবী রাজীব ধাওয়ান বাবরি মসজিদ মামলার শুনানির সময় শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টে হিন্দুদের সমালোচনা করেন৷ জানান, ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর অযোধ্যায় বাবরি মসজিদ ভেঙে গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল৷ ওই দিন হিন্দুদের আচরণ ছিল ঠিক তালিবানের মতো৷

সুপ্রিম কোর্টে বাবরি মসজিদ নিয়ে মামলার শুনানি চলছে৷ এই মামলায় মুসলিম পক্ষের হয়ে সওয়াল করছেন আইনজীবী রাজীব ধাওয়ান৷ এর আগে মামলার শুনানির সময় তিনি ‘হিন্দু তালিবান’ শব্দের প্রয়োগ করেছিলেন৷ জানিয়েছিলেন, হিন্দু তালিবানরাই বাবরি মসজিদ ধ্বংস করেছিল৷ তাঁর বক্তব্যের স্বপক্ষে আফগানিস্তানের বামিয়ানে বুদ্ধ মূর্তি ধ্বংসের কথা টেনে আনেন৷ জানিয়েছিলেন, তালিবানরা যেভাবে বুদ্ধ মূর্তি ভেঙেছিল হিন্দুরাও একই কায়দায় বাবরি মসজিদ ধ্বংস করেছিল৷

আইনজীবীর ‘হিন্দু তালিবান’ মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেন অপর আইনজীবীরা৷ তারা জানান, এই ভাবে গোটা হিন্দু জাতিকে তালিবানের সঙ্গে তুলনা করে উচিত কাজ করেননি রাজীব ধাওয়ান৷ দু’পক্ষকে শান্ত করতে প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র আদালতে শিষ্টাচার রক্ষার কথা মনে করিয়ে দেন৷ সেই সঙ্গে জানান, এই ধরনের বিশেষণ শব্দের প্রয়োগ আদালতের ভেতরে নয় বাইরে মানায়৷ বলেন, ‘‘এই ধরনের বিশেষণের প্রয়োগ করা অসঙ্গত৷’’

তার পরেও নিজের অবস্থানে অটল থাকেন রাজীব ধাওয়ান৷ জানান, নিজের আগের মন্তব্য থেকে একচুলও সরবেন না৷ বলেন, ‘‘১৯৯২ সালের ডিসেম্বরের ওই দিন যা ঘটেছিল তা হিন্দু সন্ত্রাস ছাড়া কিছু না৷’’ এখানে না থেমে তিনি জানান, ১৫২৮ সাল থেকে অযোধ্যার ওই জমিতে তৈরি হয় বাবরি মসজিদ৷ হিন্দুদের তার পাশে একটি জায়গায় পুজোর অনুমতি দেওয়া হয়েছিল৷

প্রসঙ্গত বাবরি মসজিদ মামলাটি সাংবিধানিক বেঞ্চে পাঠানো হবে কিনা সেই নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে চলছে শুনানি৷ প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে গঠিত বিচারপতি অশোক ভূষণ ও বিচারপতি আবদুল নাজিরের বেঞ্চ নেবে সেই সিদ্ধান্ত৷

----
--