ত্বকের যত্বে ঘরোয়া স্ক্রাব

প্রতিদিন ঝকঝকে-চকচকে ত্বক ধরে রাখতে স্ক্রাব করাটা খুবই জরুরী। স্ক্রাব করার ফলে ত্বক থেকে সহজেই মৃত কোষ দূর হয়ে বেরিয়ে আসে নতুন কোষ, এরফলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বেড়ে ত্বক হয়ে ওঠে নরম এবং কোমল।

প্রতি সপ্তাহে নিয়ম করে ২ থেকে ৩ দিন স্ক্রাব করাটা দরকার। কিন্তু সব সময় পার্লারে গিয়ে তো আর স্ক্রাব করা সকলের পক্ষে সম্ভব নয়, কারণ তা বেশ সময় ও খরচ সাপেক্ষ। তাই ঘরে বসেই ঘরোয়া উপাদান দিয়ে ফেস স্ক্রাব করার সহজ উপায় রইল আজ মোহিনীর রূপের খাতায়।

হলুদের ফেস স্ক্রাব: একটি পাত্রে ১ টেবিল চামচ চালের গুঁড়ো, ১ টেবিল চামচ ময়দা, আধ টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়ো ও কিছুটা ঠান্ডা দুধ মিশিয়ে একটা প্যাক বানিয়ে নিন। এবার এই মিশ্রণটি মুখে ও গলায় লাগিয়ে আঙুলের ডগা দিয়ে গোল গোল করে হালকা হাতে মাসাজ করুন। এরপর ২০ মিনিট রেখে জল দিয়ে ভালো করে ধূয়ে নেবেন। এই প্যাক ত্বক যেমন পরিষ্কার করে তেমননি সান ট্যান দূর করে ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতেও সাহায্য করে।

- Advertisement -

পেঁপের ফেস স্ক্রাব: কয়েক টুকরো পাকা পেঁপের সঙ্গে কিছুটা চিনি মিশিয়ে ভালো করে চটকে একটা প্যাক বানিয়ে নিন। প্রথমে জল দিয়ে মুখ পরিষ্কার করে, তারপর পেঁপের প্যাক মুখে ও গলায় লাগিয়ে ৩ থেকে ৪ মিনিট মাসাজ করুন। এরপর মিশ্রণটি ১৫ মিনিট মুখে রেখে, ভালো করে জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক ত্বককে ময়শ্চারাইজ় করতে সাহায্য করে। এছাড়া ত্বককে করে তোলে নরম তুলতুলে। শুষ্ক, স্বাভাবিক ও স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য এই প্যাক খুবই উপকারী।

চন্দন গুঁড়োর ফেস স্ক্রাব: চন্দন গুঁড়ো, কেশর ও গোলাপ জল একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এই প্যাক মুখে লাগিয়ে গোল গোল মাসাজ করুন। তারপর মিশ্রয়ণটি ১০মিনিট রেখে, ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে নিন। এই প্যাক মুখের দাগ ছোপ, সান ট্যান দূর করে ত্বককে করে তোলে ঝকঝকে।

আমন্ড ফেস স্ক্রাব: ৪ থেকে ৫টা আমন্ড বাদাম সারারাত জলে ভিজিয়ে রেখে তা ভালো করে পেস্ট করে নিন। আমন্ডের এই পেস্টে দুধ সঙ্গে মিশিয়ে একটা মিশ্রণ তৈরি করে তা আঙুলের ডগা দিয়ে মুখে ও গলায় ভালো করে মাসাজ করবেন। এরপর কিছুক্ষণ প্যাকটা মুখে রেখে জল দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাক যেমন ত্বকের পুষ্টি যোগায় ও ত্বককে ময়শ্চারাইজ় করে তেমনি শুষ্ক ত্বকের জন্যও আমন্ডের এই প্যাক খুবই উপকারী।

Advertisement ---
-----