‘মমতার সরকারে মন্ত্রী ছিলাম বলে আমি লজ্জিত’

স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: দল বদলেছেন৷ কিন্তু নিজেকে বদলাননি৷ শুক্রবার মুর্শিদাবাদে সাংবাদিক বৈঠক করে কার্যত সেকথাই বুঝিয়ে দিলেন হুমায়ুন কবীর৷

এতদিন যেভাবে চাঁচাছোলা ভাষায় আক্রমণ করতেন বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাদের৷ এদিনও একই ভাবে আক্রমণ শানালেন কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে৷

আরও পড়ুন: উপত্যকাবাসীর উপকারে ‘মদদগার হেল্পলাইন’

- Advertisement -

বিজেপিতে যোগদানের পরে এদিনই তিনি মুর্শিদাবাদে আসেন৷ তার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সোজাসুজি জানিয়েদিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার সদস্য হয়েছিলেন বলে এখন তিনি লজ্জিত৷ বললেন, ‘‘আমার লজ্জা লাগে এই তৃণমূল সরকারের মন্ত্রী ছিলাম৷’’

কেন তিনি এই কথা বলছেন, তারও ব্যাখ্যা দিয়েছেন হুমায়ুন কবীর৷ তাঁর অভিযোগ, ‘‘রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দেশ জুড়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের সমালোচনা করেন৷ ঠিক তখনই এই মুর্শিদাবাদ জেলার নানা প্রান্তে সংখ্যালঘুদের মিথ্যে মামলায় ফাঁসিয়ে গারদে পোরা হচ্ছে৷’’ তবে সংখ্যালঘুদের জন্য যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার কাজ করেছে, সে কথা অবশ্য এদিন স্বীকার করে নেন সদ্য কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে আসা এই নেতা৷

আরও পড়ুন: ওঝাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে: মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সন

হুমায়ুন কবীর আজীবন কংগ্রেস করেছেন৷ মাঝে ২০১২ সালে কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন৷ তখন তিনি রেজিনগরের বিধায়ক৷ তার পর মন্ত্রীও হন৷ কিন্তু উপ-নির্বাচনে জিততে পারেননি৷ ফলে বিধায়ক পদের সঙ্গে তাঁর মন্ত্রিত্বও চলে যায়৷ আর এর পর থেকেই তাঁর সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের সম্পর্ক খারাপ হতে শুরু করে৷ তিনি তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হতে শুরু করেন৷ শেষপর্যন্ত তৃণমূল ছেড়ে আবার কংগ্রেসে ফিরে আসেন৷

যদিও ২০১৬ সালে আর তিনি রেজিনগর থেকে কংগ্রেসের টিকিট পাননি৷ তখন আবার তিনি ওই কেন্দ্রে নির্দল প্রার্থী হিসেবে লড়াই করেন৷ তৃণমূলের প্রার্থীর কাছে প্রায় ৮০০ ভোটে হেরে যান৷ এর পর চলতি বছর তিনি পঞ্চায়েত ভোটে প্রার্থী হন৷ লড়াইয়ে নামেন তৃণমূলের হেভিওয়েট এক নেত্রীর বিরুদ্ধে৷ কিন্তু নির্বাচনে রিগিংয়ের অভিযোগ তুলে জেলা পরিষদের আসন থেকে নিজের প্রত্যাহার করে নেন ভোটের দিন৷

আরও পড়ুন: দুর্নীতির অভিযোগ জানিয়ে তিন পাতার চিঠি, অস্বস্তিতে শাসকদল

যদিও ভোটের কিছুদিন পরই তিনি কংগ্রেস ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন৷ একই সঙ্গে জানিয়ে দেন বিজেপিতে তিনি যোগদান করবেন৷ সেই সিদ্ধান্ত প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই হুমায়ুন কবীর তৃণমূল ও কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তোপ দাগছেন৷ শুক্রবার সাংবাদিক বৈঠকে বজায় রাখলেন সেই ধারা৷

তাই সরাসরি আক্রমণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে৷ তাঁর অভিযোগ, মুখ্যমন্ত্রী পুলিশ নির্ভর রাজনীতি করছেন৷ তাই মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সাধারণ মানুষ করে দিতেই তিনি দল বদলে বিজেপিতে এলেন৷

আরও পড়ুন: কংগ্রেসের জোটের চিঠিকে গুরুত্বই দিচ্ছে না বামেরা

রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা, হুমায়ুন কবীর বরাবরই ঠোঁটকাটা নেতা হিসেবে পরিচিত৷ তৃণমূলে থাকাকালীন রোজই অধীর চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিষোদগার করতেন৷ ফলে বিজেপিতে এসে তিনি নিয়মিত কংগ্রেস ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে আক্রমণের মাত্রা তীব্রতর করবেন৷

Advertisement ---
---
-----