নয়াদিল্লি: নোট বাতিলের পর বায়ুসেনার এয়ারক্রাফটেই দেশের বিভিন্ন জায়গায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছিল নতুন ৫০০ ও ২০০০ টাকার নিট। ব্যবহার করা হয়েছিল C-17 ও C-130J সুপার হারকিউলিস এয়ারক্রাফট। সেইসব অত্যাধুনিক এয়ারক্রাফট ব্যবহার করতে কেন্দ্রের খরচ হয়েছে মোট ২৯.৪১ কোটি টাকা। একটি আরটিআই-এর উত্তরে এই তথ্য দিয়েছে কেন্দ্র।

২০১৬-র ৮ নভেম্বর পুরনো ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট বাতিল করার কথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। আর এরপরই এয়ারফোর্সের বিমানের মাধ্যমে নতুন নোট বিভিন্ন জায়গায় পাঠানোর কাজ শুরু হয়। অন্তত ৯১ বার বিমান ওড়ে আকাশে।

পুরো প্রক্রিয়া শেষে ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক নোট মুদ্রন প্রাইভেট লিমিটেড ও প্রিন্টিং অ্যান্ড মিন্টিং কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া-কে বিল বায়ুসেনা। ওই সার্ভিসের জন্য বায়ুসেনা ২৯.৪১ কোটি টাকা বিল দিয়েছিল।

নোট বাতিল করার পর নতুন ৫০০ ও ১০০০ টাকার নোট ছাপতে কেন্দ্রের মোট খরচ হয়েছিল ৭,৯৬৫ কোটি টাকা। এর আগের অর্থবর্ষে টাকা ছাপাতে খরচের পরিমাণ ছিল এর অর্ধেক প্রায় ৩,৪২১ কোটি টাকা। একধাক্কায় দ্বিগুণ হয়ে যায় নোট ছাপানোর খরচ।

কালো টাকার পরিমাণ কমাতে এটাই ছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সবথেকে বড় পদক্ষেপ।

--
----
--