সিউড়ি হাসপাতালে নতুন বিভাগ ঘিরে বিতর্ক

বীরভূম: রুগ্ন সিউড়ি সদর হাসপাতালে আর একটি নতুন পালক যোগ হতে চলেছে আগামী ৩ জুলাই। নবান্নে বসেই হাসপাতালের একটি নতুন বিভাগ খুলবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী ৩ জুলাই সিউড়ি সদর হাসপাতালে খুলতে চলেছে নতুন আইসিইউ বিভাগ। চার শয্যা বিশিষ্ট এই আইসিইউ বিভাগের উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী। সেদিন সিউড়ি হাসপাতালে উপস্থিত থাকবেন রাজ্যের মৎস্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা এবং মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকেরা। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরকে ঢেলে সাজাতে নানা পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিলেন। গরিব মানুষদের  বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়ার পাশাপাশি জেলার হাসপাতালগুলিকে উন্নত করার কথাও ঘোষণা করেছিলেন। কিন্তু বর্তমানে সেই ঘোষণা যে শুধু কথার কথা তা আরও একবার প্রমাণ হল সিউড়ি হাসপাতালে।

রাজ্য সরকারের এহেন সিদ্ধান্তে ফুলে ফেঁপে উঠছেন বেসরকারি বেশ কিছু চিকিৎসা কেন্দ্র। আর তার জন্যই সর্বস্বান্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। বর্তমানে চালু হতে যাওয়া চার শয্যা বিশিষ্ট এই আইসিইউ কতটা বাস্তবায়িত হবে তা নিয়েও রয়েছে সংশয়। কারণ রাজ্য সরকারের নির্দেশ মতো বেশির ভাগ চিকিৎসকেই বদলি করে মেডিক্যাল কলেজগুলিতে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে।পাশাপাশি শাসক দলের অধীনস্থ চিকিৎসক সংগঠন তাদের পছন্দ মত চিকিৎসক নিয়োগ করছে৷ফলে এই মুহূর্তে সিউড়ি সদর হাসপাতাল কার্যত চিকিৎসক শূন্য হয়ে পড়েছে। চিকিৎসা করাতে এসে ফিরে যেতে হচ্ছে রোগীদের। সেখানে এই আইসিইউ সাধারণ মানুষের পরিষেবার জন্য কতটা কাজে আসবে নাকি উদ্বোধনের পর মুখ থুবড়ে পড়বে তা এক মাত্র স্বাস্থ্য দফতরই বলতে পারবে। চিকিৎসক সংগঠন ও রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের বেশকিছু ভুল বা নিজের স্বার্থ চরিতার্থ করার সিদ্ধান্তে  জেলা হাসপাতালগুলির অবস্থা দিনের পর দিন বেহাল হয়ে পড়েছে। সিউড়ি সদর হাসপাতালের মোট আসন সংখ্যা ৫২০ টি । অস্থি বিভাগ চিকিৎসক থাকার কথা ছ’জন,ছিলেন দু’জন। বর্তমানে রয়েছেন এক জন। সার্জারি বিভাগে চিকিৎসক থাকার কথা  ছ’জন,ছিলেন তিন জন। বর্তমানে বদলি করা হল  দু’জন চিকিৎসককে। এই দুটি বিভাগই সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ অথচ এই দুটি বিভাগ থেকেই চিকিৎসক বদলি করা হল।কিন্তু তার পরিবর্তে কোনও চিকিৎসক আনার বা পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয় নি এই জেলা হাসপাতালে।

অন্যদিকে শিশু বিভাগ থেকে দু’জন চিকিৎসককে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ইউএসজি বিভাগ থেকেও একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসককে বদলি করা হয়েছে। সাধারণ মানুষের দাবি বর্তমানে সিউড়ি সদর হাসপাতালে ভালো পরিষেবার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে চিকিৎসক আনার ব্যবস্থা করুক রাজ্য সরকার। পাশাপাশি হাসপাতালকে সচল রাখতে চতুর্থ শ্রেণীর কর্মী নিয়োগের ব্যবস্থা করে হাসপাতাল কে রুগ্ন অবস্থা থেকে বাঁচিয়ে তোলার ব্যবস্থা করা হোক। তা না হলে রাজ্য সরকারের ঢিলেঢালা মনোভাবে এক শ্রেণির দালাল চক্র সাধারণ মানুষকে চিকিৎসার নামে সর্বস্বান্ত করে দিচ্ছে। অথচ সরকারি হাসপাতালে সমস্ত কিছু পরিকাঠামো থাকা স্বত্বেও চিকিৎসকের অভাবে তা পড়ে পড়ে নষ্ট হচ্ছে। মানুষের দাবি সিউড়ি সদর হাসপাতালকে রুগ্ন দশা থেকে বাঁচাতে চিকিৎসক ও পর্যাপ্ত ব্যক্তি আনা হোক তা না হলে ক’দিন পরে আইসিইউ, আইসিইউ তে চলে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন তারা।উদ্বোধন করা তখন কার্যতই বেকার হবে৷

==================================================================

----
-----