মন্দিরে যাওয়া বা পুজো করার সময় নেই? জেনে নিন প্রার্থনার গোপন পন্থা

হিন্দু শাস্ত্রে বা পুরাণে আমরা মন্দিরের উল্লেখ পাই। যে কোনও পৌরাণিক কাহিনীতেই উল্লেখ করা হয়, মন্দিরে গেলে কতটা উপকৃত হওয়া যায়। কিভাবে ভগবানের আশীর্বাদ পাওয়া যায়। মন্দিরে গেলে কতটা সুন্দর হয়ে উঠতে পারে আপনার জীবন। যে কোনও অশুভ শক্তিকে দূরে সরিয়ে দিতে পারে মন্দিরে দেবতার দর্শন।

কিন্তু যদি নিত্যদিন মন্দিরে যাওয়া সম্ভব না হয় তাহলে! সেক্ষেত্রে প্রত্যেক দিন নিয়মিত বাড়িতে পূজা-পাঠ করতে হবে। দিনের শুরুতেই ভগবানের আরাধনা করলে নেতিবাচক শক্তি মনে জায়গা পায় না। ভগবানের আশীর্বাদ নিয়ে এগিয়ে চলা যায় উদ্যমের সঙ্গে। কিন্তু যদি এমনটা হয় যে আপনি মন্দিরে যাওয়ার সুযোগ পেলেন না, বাড়িতেও পুজো করার সময় হল না তাহলে? তার জন্য একটি গোপন উপায় রয়েছে। অনেকেই সেটা জানেন না।

বাড়িতে বড়রা বলে থাকেন, কেন সকালে মন্দিরে যাওয়া উচিৎ নিয়মিত। আর আমাদের দেশের বিভিন্ন প্রান্তে রয়েছে বহু মন্দির। একেকটা অপরটির থেকে আলাদা। মন্দিরে মানুষ কেবল ভগবানের আশীর্বাদ পেতেই যায় না। মন্দিরে গেলে মন শান্ত হয়। কিন্তু নানা কাজে ব্যস্ত থাকায় আমরা প্রত্যেকদিন মন্দিরে যেতে পারি না। হিন্দু শাস্ত্র বলা হয়, যে কোনও মন্দিরের চূড়া ওই মন্দিরে মতই গুরুত্বপূর্ণ। কোনও মন্দির বাইরে থেকে দেখলে তার মাথায় একটা পতাকা উড়তে দেখতে পাওয়া যায়। এই পতাকা মন্দিরের পবিত্রতা বহন করে। তাই দূর থেকে মন্দির দেখলে, ওই পতাকার দিকে তাকিয়ে চোখ বন্ধ করে প্রার্থনা করুন। শাস্ত্রে বলা হয় ‘শিখর দর্শন, পাপ নাশম’। অর্থাৎ, মন্দিরের চূড়া আপনার পাপ বিনাশ করতে পারে।

তবে সবার মধ্যেই বাস করে ভগবান। তাই কোথাও না গিয়ে নিজের মন থেকে প্রার্থনা করা বেশি জরুরি।

Advertisement
----
-----