এই কয়েকটি উপায় মেনে চললেই আপনি হয়ে যাবেন ফেসবুক সেলিব্রিটি

এখন সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ। বাচ্চা থেকে বুড়ো সকলেই দিনের অর্ধেক সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় থাকতে পছন্দ করে। বর্তমানে গোটা বিশ্বে অনেক মানুষই আছেন যাদের মানুষ চেনে তাদের দারুণ ফেসবুক পেজের জন্য। ফেসবুক অ্যাকাউন্টের জন্য আপনাকে আলাদা করে চিনবে মানুষজন। কিন্তু দেখা যায়, ভাল পোস্ট করলে বা ভাল ছবি আপলোড করলেও সবসময় ভাল সাড়া পাওয়া যায় না। এতে মন খারপ হয়ে যায় অনেকের। আর মন খারাপ হওয়াটায় স্বাভাবিক এত ভালো কিছু পোস্ট করেও আপনি তেমন পরিচিতি পাচ্ছেন না সকলের কাছে। তবে বলে রাখি এমনটা হচ্ছে হয়তো আপনার কিছু ভুলের জন্যে। সে ভুলগুলো শুধরে নিলেই আপনি হয়ে যাবেন ফেমাস এবং ধীরে ধীরে আপনিও হয়ে উঠবেন একজন ফেসবুক সেলেব্রিটি।

শুধুমাত্র আপনাদের জন্যেই তুলে ধরা হল ফেসবুকে সেলেব্রিটি হওয়ার কিছু টিপস-

নিজের উৎসাহের বিভিন্ন গ্রুপে যোগ দিন। মতামত বিনিময় করুন। পারলে কয়েকজন ফেসবুক সেলিব্রেটিদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করুন। পোস্ট দেওয়ার সময়টা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ছুটির দিনে রাতে বা ছুটির আগের দিনে রাতে ফেসবুকের পোস্ট খুবই কার্যকরী।

- Advertisement -

১. ফেসবুকে আজকাল অনেক ভালো ভালো গ্রুপ আছে। এইসব গ্রপের সক্রিয় সদস্য হয়ে যান, সকলের সাথে পরিচিয় বাড়ান। সেখান থেকে বেছে বেছে পছন্দের মানুষের অ্যাড করুন। দেখবেন ভারি হচ্ছে আপনার ফ্রেন্ড লিস্ট।

২. অশ্লীল বা সাম্প্রদায়িক পেজে লাইক দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। পোস্ট ও পেজের কনটেন্ট পাবলিক করে রাখুন। বিভিন্ন গ্রুপে যোগ দিন

৩. ফেসবুকের মাধ্যমে সামাজিক কর্তব্য পালন করুন। সেটা রক্তদান হতে পারে, দুঃস্থদের পাশে দাঁড়ানো হতে পারে কিংবা অন্য কিছুও হতে পারে। ফেসবুক ফ্রেন্ড সার্কেলে থাকা সকলের জন্মদিনের ‘‌রিমাইন্ডার’‌ দেয়। জন্মদিনে বন্ধুদের ‘‌উইশ’‌ করতে ভুলবেন না।

৪. নিজের রসবোধকে কাজে লাগান। মানুষকে দৃষ্টি আকর্ষণের সবচেয়ে সহজ উপায় হল রসবোধ। আপনি যে বিষয় নিয়ে উৎসাহী, সেই বিষয়ের একটি পেজ শুরু করুন।

৫. নিয়মিত প্রোফাইল পিকচার বদলান। যিনি ছবি তুলে দিচ্ছেন, তাঁর নাম উল্লেখ করতে ভুলবেন না।

৬. গান, সিনেমা, বই এমন নানা জিনিসের রিভিউ দিন। তবে যা নিয়ে আপনার জ্ঞান কম, সেটা নিয়ে লিখতে যাবেন না।

৭. বন্যা, ভূমিকম্পের মতোর আপৎকালীন বিষয়ে যত পারবেন, খবর শেয়ার করুন। সাম্প্রতিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে নিজের বক্তব্য নিয়ে পোস্ট দিন। তবে সেই ঘটনার বিশ্লেষণ যেন যুক্তিপূর্ণ হয়।

৮. গুরুত্ব বুঝে লাইক দিন। সবকিছুতে লাইক ঠুকে দিলে আপনিই গুরুত্ব হারাবেন। নিতান্ত দরকার না হলে কিংবা পোস্টের সঙ্গে প্রাসঙ্গিক না হলে শুধুমাত্র লাইকের লোভে কাউকে ট্যাগ করবেন না। এতে অনেকেই বিরক্ত হন।

৯. যতটা পারবেন, নিজে থেকে বন্ধুত্বের অনুরোধ পাঠানোর থেকে বিরত থাকুন। কেউ বন্ধুত্বের অনুরোধ প্রত্যাখান করলে তাকে উত্যক্ত করবেন না।

Advertisement ---
---
-----