টাকার লোভে অবৈধ প্রণয়, প্রেমিকের হাতে বলি বধূ

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ঘরে বর থাকতেও পর পুরুষে মজেছিলেন স্রেফ টাকার লোভে৷ অতিরিক্ত সেই টাকার লোভেই গোলমাল করতে গিয়ে আস্ত প্রাণটাই খোয়ালেন এক গৃহবধূ৷ ঘটনাটি দদমের মিত্র পাড়া এলাকার ঘটনা৷ শুক্রবার ভোরে অভিযুক্ত প্রেমিক সঞ্জয় মিত্রকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ উদ্ধার করা হয়েছে খুনের কাজে ব্যবহৃত ছুরিটিও৷

পুলিশ জানিয়েছে, মৃত গৃহবধূর নাম রাধা ঘোষ (৪০)৷ দমদমের মিত্রপাড়ায় বাপের বাড়িতেই স্বামী প্রদীপ ঘোষকে নিয়ে থাকতেন তিনি৷ প্রদীপ কলকাতা পুরসভার অস্থায়ী কর্মী৷ তাঁদের একটি ৮ বছরের কন্যেও আছে৷ বৃহস্পতিবার অবশ্য রাধাদেবীর মা ও মেয়ে বর্ধমানে আত্মীয় বাড়িতে গিয়েছিলেন৷

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত সঞ্জয়ের বাড়ি আন্দামনে৷ জেরায় ধৃত পুলিশের কাছে দাবি করেছে, রাধার সঙ্গে বছর খানেক আগে তাঁর আলাপ হয় সোনাগাছিতে৷ তারপরই ধীরে ধীরে তাঁদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে৷ রাধা তাঁকে জানায় অভাবের তাড়নাতেই সে এই পথে পা বাড়িয়েছে৷

- Advertisement -

পুলিশ সূত্রের খবর, পেশায় ব্যবসায়ী সঞ্জয়ের পরামর্শে রাধা ওই ব্যবসা থেকে সরে আসেন৷ সংসার চালানোর খরচ দেওয়ার বিনিময়ে দু’জনের মধ্যে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্কও হয়৷ এমনকি প্রদীপবাবুর কাছে রাধা সঞ্জয়কে তাঁর ‘দাদা’ হিসেবে পরিচয় দিতেন৷ দু’জনের সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতা তৈরি হওয়ায় সম্প্রতি আন্দামানের সম্পত্তি বিক্রি করে কলকাতায় চলে আসে সঞ্জয়৷ গত ৭-৮ দিন ধরে রাধার বাড়িতেই ছিল সে৷

প্রদীপবাবু পুলিশকে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সন্ধে ৮ টা নাগাদ খাবার কিনতে বাইরে গিয়েছিলাম৷ ফিরে এসে দেখি মাটিতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে স্ত্রী৷ গলায় ও মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত৷ পাশেই পড়েছিল ছুরিটি৷ তদন্তে নেমে রাতেই দমদম এলাকা থেকে সঞ্জয়কে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, জেরায় সঞ্জয় জানিয়েছে- রাধার আর্থিক চাহিদা উত্তরোত্তর বাড়ছিল৷ বৃহস্পতিবার সন্ধেয় ফের অতিরিক্ত টাকা চাওয়ায় গোলমাল শুরু হয়৷ তখনই রাগের বশে সে রাধাকে ছুরি দিয়ে খুন করে৷ ধৃতের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩০২ ধারায় খুনের মামলা রুজু করেছে চিৎপুর থানার পুলিশ৷

Advertisement
---