এই গ্রামে এখনও পূজিত হন হিটলার

বার্লিন: দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির বিপুল পরাজয় এবং নাৎসি নেতা হিটলারের জনপ্রিয়তার খোয়ানোর শেষের শুরু।  নিজের এই শেষ মানতে না পেরে শেষে আত্মহত্যা করে বেঁচেছিলেন তিনি।  কিন্তু এই বিশ্বেরই কোথাও এখনও বাজে সেই নাৎসি চরমভাবাপন্নের ঘন্টা।

আরও পড়ুন: গান্ধী বংশনাশ রহস্যের ‘পর্দাফাঁস’

দাবি করা হয়, হিটলারের জন্যই যুদ্ধে বেঁধেছিল তাঁর কারনেই।  তাই হিটলারের স্মৃতিকে অপ্রাসঙ্গিক করতেও উদ্যত বর্তমান জার্মানি।  কিন্তু ইতিহাস বদলায় না।  এমনই অবস্থাতেই জার্মানির এক প্রত্যন্ত গ্রামে দেখা মিলেছে একটি গির্জার, যেখানে হিটলারের শুভকামনায় এখনও বাজানো হয় ঘণ্টা। সে ঘণ্টায় খোদাই করা, ‘‌পিতৃভূমির জন্য সমর্পিত, অ্যাডলফ হিটলার।’‌ বড় বড় করে তাতে আঁকা আর্যরক্তের আভিজাত্যের প্রতীক স্বস্তিক চিহ্ন।

- Advertisement -

আরও পড়ুন: ট্রেনের মাথায় চেপে এসেছিলেন ভারতে, ৭০ বছর পর দেখলেন পাকিস্তানের জন্মভিটে

এই ঘণ্টা আবিষ্কারের পর থেকেই তা সরানোর দাবি উঠেছে।  অনেকে আবার বলছেন, জাতীয় লজ্জার একটা পর্বকে তুলে ধরতে এই ঘণ্টা সংরক্ষণ করা হোক ।  ঘণ্টার ভবিষ্যৎ নিয়ে গ্রামের মানুষ এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি।  আসলে জার্মানিতে হিটলারের আমলে তাঁর সমর্থনে গির্জা থেকে স্তোকবাক্য পাঠ করানো হত।  পরে সেই রীতি বিলুপ্ত হয়।  তবে বহাল তবিয়তে রয়ে গিয়েছে কিছু ঘণ্টা।

আরও পড়ুন: ‘মুসলিমরা না থাকলে আমরা বাঁচতাম না’, ট্রেন দুর্ঘটনার পর বললেন এই সাধু

আমেরিকার মধ্যে কনফেডারেট দেশ গঠনের দাবি উঠেছিল ১৮৬১ থেকে ৬৫ সাল নাগাদ।  দাসপ্রথার সমর্থকরা লড়াই করেছিল সেনার সঙ্গে।  এই কনফেডারেট যোদ্ধাদের মূর্তিভাঙ্গা নিয়ে এখন জোর বিতর্ক চলছে ওয়াশিংটনে।  সেই শ্বেতাঙ্গদের সমর্থন করেছে নব্য নাৎসিরা।

Advertisement
---