স্টাফ রিপোর্টার, বারুইপুর: জমি বিবাদের জেরে ভাইকে হাতুরি দিয়ে মেরে মাথা ফাটিয়ে দিল দাদা৷ ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগণার বাসন্তী থানার ছাটুই পাড়া এলাকায়৷ ঘটনায় গুরুতর জখম তারাশঙ্কর নস্কর ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷

এই ঘটনায় তারাশঙ্করের স্ত্রী শান্তনা নস্করও আক্রান্ত হন৷ ঘটনায় অভিযুক্ত তারাশঙ্করের দাদা ভবসিন্ধু নস্কর ও তার ছেলে কালো নস্কর বিরুদ্ধে বাসন্তী থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷ বাসন্তী থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে৷

আরও পড়ুন: মহম্মদ সেলিমের কি ফ্রয়েডীয় মনোবৈকল্য দেখা দিল?

শান্তনা নস্করের অভিযোগ, আড়াই বিঘা বাস্তু বাড়ি নিয়ে দুই ভাই তারাশঙ্কর ও ভবসিন্ধুর মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া বিবাদ লেগে থাকত৷ বুধবার সকালে কাউকে কিছু না বলে দাদা ভবসিন্ধু ভাই তারাশঙ্করের বাড়িতে চলাফেরার রাস্তার উপর ঘর বাঁধতে শুরু করে৷

তারই প্রতিবাদ করেন তারাশঙ্কর ও তার স্ত্রী শান্তনা নস্কর৷ সেই সময় ভবসিন্ধু ও তার ছেলে কালো দুজনে মিলে লাঠি, রড ও হাতুরি দিয়ে তারাশঙ্করকে বেধড়ক মারধর করে৷ স্বামীকে বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত হন শান্তনা নস্করও৷ এরপরই স্থানীয়বাসিন্দারা তারাশঙ্করকে উদ্ধার করে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যায়৷

আরও পড়ুন: ছাত্রীর সঙ্গে কুকীর্তির ভিডিও ফাঁস!

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের মে মাসে দক্ষিণ ২৪ পরগণারই মগরাহাট থানার সালকিয়া মুন্সিপাড়ায় জমি বিবাদের জেরে ছোট ভাইকে খুনের অভিযোগ উঠেছিল দুই দাদার বিরুদ্ধে৷ অভিযুক্ত মেজ ভাই ও সেজ ভাইয়ের নাম টিপু মুন্সি ও কচি মুন্সি৷ মৃত ছোট ভাইয়ের নাম কাজল মুন্সি৷

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছিল, পরিবারের গৃহকর্তার মৃত্যুর পর গৃহকর্ত্রী রহিমা মুন্সি তাঁর ছোট ছেলের কাছেই থাকতেন৷ তাঁর বাকি ছেলেরা প্রত্যেকেই আলাদা থাকেন৷ কিন্তু জমি ও বসবাসের জায়গা নিয়ে প্রায়ই ভাইদের মধ্যে ঝামেলা লেগেই থাকত৷ ঘটনার দিন রাতে এই ঝামেলা চরম পর্যায়ে পৌঁছায়৷

আরও পড়ুন: সেলফি প্রতিযোগিতায় জিতলেই পুরস্কার বালুচরী

মেজ ভাই টিপু মুন্সি ও সেজ ভাই কচি মুন্সি দু’জনে মিলে ছোট ভাই কাজল মুন্সির উপর অস্ত্র নিয়ে চড়াও হয় বলে অভিযোগ৷ এমনকী, ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাঁকে কুপিয়ে খুন করে তারা৷ পরে পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে৷ তবে এই ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত দু’ভাই পলাতক৷ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ৷

----
--