স্টাফ রিপোর্টার, আলিপুরদুয়ার: সর্ষের মধ্যেই ভূত! বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্প এলাকা থেকে রহস্যজনকভাবে প্লাস্টিকের মোড়কে উদ্ধার হওয়া একটি পূর্ণ বয়স্ক বাইসনের দেহ উদ্ধারকে ঘিরে এমনই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷ প্লাস্টিকের মধ্যে মোড়া ছিল প্রায় সাড়ে সাতশো কেজি বাইসনের মাংস৷ বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে৷ বন দফতর সূত্রের খবর, ঘটনায় উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে৷ ইতিমধ্যে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের আধিকারিকরা৷

বুধবার রাতে বক্সা ব্র্যাঘ্র প্রকল্পের পশ্চিম বিভাগের পানা রেঞ্জ এলাকার জঙ্গলের মধ্য থেকে উদ্ধার হয়েছে বাইসনের টুকরো টুকরো দেহাংশ। মৃতদেহের দেহাংশ পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তে৷ অপরাধীদের খোঁজে স্নিফার ডগ দিয়ে গভীর জঙ্গলে তল্লাশি চালানো হচ্ছে। ঘটনায় বনকর্মীদের কেউ জড়িত রয়েছেন কি না, তা খতিয়ে দেখছেন বনকর্তারা৷

- Advertisement -

প্রাথমিক তদন্ত থেকে বনকর্তারা জানাচ্ছেন, বাইসনটির দেহে গুলির কোনও চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ফলে মৃত্যুর কারণ নিয়ে ধন্দ তৈরি হয়েছে৷ খোলা বাজারে কেজি পিছু বাইসনের মাংসের দাম ২৫০ টাকা৷ স্বভাবতই, খোলা বাজারে বাইসনের মাংস পাচারের উদ্দেশ্যেই পূর্ণ বয়স্ক বাইসনটিকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে বলে মনে করছেন বনকর্তারা৷  ইতিমধ্যে বন দফতরের অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ পৃথকভাবে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে৷

তবে ঘটনায় দোষীদের নাগাল এখনও অধরায়৷ বনমন্ত্রী বিনয়কৃষ্ণ বর্মণ বলেন, ‘‘চোরাপাচারকারীদের খোঁজে তল্লাশি চলছে৷ তবে বনকর্মীদের তৎপরতায় মৃত বাইসনের মৃতদেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে৷’’

- Advertisement -