খেলার মাঠে হাতাহাতি, আহত রেফারি সহ ২

স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: খেলার মাঠে দুই দলের হাতাহাতি৷ সেই বচসার জেরে আহত দুই খেলোয়াড়৷ গোটা ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায় বাঁকুড়ার সিমলাপালে। রেফারিকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করার পাশাপাশি তাঁকে আক্রমণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ। ঘটনায় আহত হয় দুই খেলোয়াড়৷ পাশাপাশি পুলিশের উপস্থিতিতে এই ঘটনা ঘটলেও তারা নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছে বলে একাংশের অভিযোগ।

সোমবার বাঁকুড়ার সিমলাপাল থানার উদ্যোগে স্থানীয় হাই স্কুল মাঠে জঙ্গল মহল কাপ কবাডি ফাইনাল প্রতিযোগিতা ছিল৷ সেখানেই পুরুষ বিভাগে মাধবপুর ইয়ং স্টার বনাম পুকুরিয়া জনসেবা সংঘ পরস্পরের মুখোমুখি হয়। খেলা চলাকালীন মাধবপুর ইয়ং স্টারের অধিনায়ক শিবপ্রসাদ লাহা রেফারি শ্যামল মণ্ডলকে আক্রমণের পাশাপাশি অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে বলে অভিযোগ। এই ঘটনার জেরে খেলা সাময়িক বন্ধ হয়ে যায়। উপস্থিত দর্শকের মধ্যে তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পুলিশ ওই সময় মাঠে উপস্থিত থাকলেও তাঁরা ‘নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে’ বলে অনেকের অভিযোগ।

উল্লেখ্য, যার বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই খেলোয়াড় ও মাধবপুর ইয়ং স্টারের অধিনায়ক শিবপ্রসাদ লাহা তিনি মুখ্যমন্ত্রীর হাত থেকে বাগডিহাতে কৃতি খেলোয়াড়ের পুরস্কার গ্রহণ করেছিলেন। একজন রাজ্য সরকার কর্তৃক পুরস্কৃত খেলোয়াড়ের এই ধরণের অ-খেলোয়াড়োচিত আচরণে নিন্দার ঝড় ওঠে। তাঁর শাস্তির দাবিতেও অনেক দর্শককে উত্তেজিত হতেও দেখা যায়। একই সঙ্গে পুকুরিয়া জনসেবা সংঘের সদস্যদের অভিযোগ এই ঘটনায় তাদের দু’জন খেলোয়াড় আহত হয়েছে। বিষয়টি মহকুমা পুলিশ প্রশাসনকে জানানো হয়েছে বলেও তাঁরা জানান।

- Advertisement -

আক্রান্ত রেফারি শ্যামল মণ্ডল তাঁর বিরুদ্ধে অকথ্য গালিগালাজ ও চড়াওয়ের অভিযোগ করে বলেন, ‘‘আজকের ঘটনা সম্পূর্ণ ব্যক্তি আক্রমণ।’’ আগামী দিনে এই ধরণের প্রতিযোগিতায় তিনি রেফারির দায়িত্ব সামলাবেন না বলেও জানান। অভিযুক্ত অধিনায়কের সঙ্গে একাধিকবার ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তাই তার প্রতিক্রিয়া মেলেনি। যদিও আয়োজক পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। তাদের দাবি, খেলার মাঝে কিছু সমস্যা তৈরি হয়েছিল। খেলার মাঠেই সব মিটে গিয়েছে।

Advertisement
-----