সরকারি স্কুলে একজন মাত্র শিক্ষক, জানেন কতজন পড়ুয়া?

চণ্ডীগড়: ঝাঁ চকচকে গুরুগ্রাম(গুরগাঁও) থেকে মাত্র ৬০ কিমি দূরে রেওয়ারি৷ হরিয়ানার একটি গ্রাম৷ গ্রামে সরকারি স্কুল থাকলেও, কোনও পড়ুয়া যায় না সেখানে৷ কেন জানেন?

গোটা স্কুলে রয়েছে মাত্র একজন শিক্ষক৷ তিনিই সব বিষয় পড়ান৷ অথচ তাঁর নিজের বিষয় সমাজ বিজ্ঞান৷ শিক্ষক না থাকায় ছাত্রীদের ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তায় অভিভাবকরা৷ তাই বাধ্য হয়েই দূরের সরকারি স্কুলে পাঠাতে হচ্ছে ছাত্রীদের৷ সেই স্কুলে অবশ্য পড়ুয়া নেই বললে ভুল হবে৷ সেখানে পড়াশুনা করে একজন মাত্র ছাত্রী৷

শিক্ষক আর ছাত্রী একজন করে থাকলেও, নেই কোনও অশিক্ষক কর্মী৷ ফলে বিদ্যালয়ের যাবতীয় কাজ একজন শিক্ষককেই করতে হয়৷ আবার ওই একজন ছাত্রীর পড়াশুনার দায়িত্বও তাঁর৷  স্কুলটির শিক্ষক দয়া কিষাণ সংবাদ সংস্থা এএনআইকে জানান, ২০১৩ সাল থেকে এই স্কুলটিতে কর্মরত তিনি৷ সরকার তাঁকে এখানে কাজ করতে বলেছে, তাই কাজ করতে বাধ্য তিনি৷ অন্য কোথাও স্থানান্তরিত করা হলে, সেখানে চলে যাবেন৷ তাঁর কোনও সমস্যা নেই৷

- Advertisement -

তিনি আরও জানান, স্কুলের এই দশা আগে ছিল না৷ বেশ কয়েকজন ছাত্রী এখানে পড়াশুনা করত৷ তবে ধীরে ধীরে পড়ুয়ার সংখ্যা কমতে থাকে৷ গত মাসেও দুজন ছাত্রী ছিল স্কুলে৷ কিন্তু একজনের মৃত্যু হয়েছে৷ তারপর থেকেই একজন ছাত্রী নিয়ে স্কুলটি চলছে টিমটিম করে৷

স্কুলের এই দুর্দশার জন্য তিনি শিক্ষকের অপ্রতুলতাকেই দায়ী করেন৷ তিনি বলেন, রাজ্যে শিক্ষকের সংখ্যা প্রয়োজনের তুলনায় যথেষ্ট কম৷ তাই এই স্কুলে এমন অবস্থা৷ অভিভাবকদের অসহায়তার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন শুধু শিক্ষক নয়, প্রয়োজনের তুলনায় কম রয়েছে অশিক্ষক কর্মীও৷ আর এই ছবিটা রাজ্যের প্রায় সবকটি সরকারি স্কুলে দেখা যায়৷

লুখি গ্রামের প্রধান চন্দ্র হর্ষ যাদব বলেন, স্কুলে শিক্ষকের সংখ্যা বাড়লেই ছাত্রীরা সেখানে ভরতি হবে৷ কিন্তু শিক্ষক না থাকলে পড়াবে কে? ছাত্রীদের ভবিষ্যত নিয়ে প্রশ্ন৷ যাদব আরও বলেন এই সমস্যা নিয়ে বিডিওকে চিঠি দিয়েছেন তিনি৷ কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি৷

এর আগে, জুন মাসে হরিয়ানার দশম শ্রেণীর ফল প্রকাশিত হলে দেখা যায়, হিসারের কাবরেল গ্রামের সরকারি স্কুল রেকর্ড করেছে৷ এই স্কুল থেকে ২৪ জন ছাত্রী দশম শ্রেণির পরীক্ষা দিয়েছিল। কিন্তু পাশের জন্য নির্দিষ্ট নম্বর কেউই তুলতে পারেনি।

শিক্ষা দফতরের এক আধিকারিক জানান, গতমাসে ফলাফল ঘোষণার পর দেখা যায়, ওই স্কুলের সব ছাত্রী অকৃতকার্য হয়েছে। তিনি যোগ করেন, এটিই একমাত্র স্কুল যা এত খারাপ ফল করেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, স্কুলে নির্দিষ্ট সংখ্যক শিক্ষকের দাবিতে পঞ্চায়েত সদস্যরা জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করেছিলেন। কিন্তু কোনও ফল মেলেনি। জানা যায়, গত শিক্ষা বর্ষে স্কুলে সংস্কৃত, হিন্দি, বিজ্ঞান, অঙ্কে কোনও শিক্ষক ছিল না।

Advertisement ---
---
-----