ফের হলদিবাড়ি থেকে বাংলাদেশ যাবে ট্রেন

স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: অতীতের স্মৃতি উস্কে ফের কোচবিহারের সীমান্ত শহর হলদিবাড়ি থেকে বাংলাদেশের চিলাহাটি পর্যন্ত ছুটবে রেল৷ তারই প্রথমধাপ হিসেবে বুধবার হলদিবাড়ি চিলাহাটি সীমান্তের কাঁটাতার পর্যন্ত তৈরি নতুন লাইনে পরিক্ষামূলকভাবে ছুটলো রেল ইঞ্জিন৷ স্বভাবতই, ঐতিহাসিক এই ঘটনার সাক্ষী থাকতে এদিন হাজির ছিল দু’পার বাংলার মানুষ। দু’পারের মানুষেরই দাবি দ্রুত এই লাইনে যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল শুরু করা হোক৷

এক সময় কোচবিহারের হলদিবাড়ি থেকে বাংলাদেশের চিলাহাটি পর্যন্ত কু ঝিক ঝিক শব্দে রেল চলত। কিন্তু দীর্ঘ প্রায় পাঁচ দশক ধরে এই লাইনে বন্ধ ট্রেন চলাচল। যদিও কয়েক বছর আগে দু’দেশের মধ্যে এই লাইন ফের পণ্যবাহী রেল চলাচলের সিদ্ধান্ত হয়। তাই ভারতীয় রেল নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই হলদিবাড়ি সীমান্ত পর্যন্ত লাইন পাতার কাজ শেষ করে ফেলেছে। সেকারণেই আজ এই লাইনে পরীক্ষামূলকভাবে রেল ইঞ্জিন চালানো হল৷

এখন বাকি কাঁটাতাঁরের বেড়ার ওপারে থাকে ১৫০ মিটার ভারতীয় ভূখন্ডে রেল লাইন পাতার কাজ। অন্যদিকে বাংলাদেশের চিলাহাটি থেকে হলদিবাড়ি আন্তর্জাতিক সীমান্ত পর্যন্ত প্রায় ২ কিলোমিটার রেল পথ নির্মান করবে বাংলাদেশ রেল কর্তৃপক্ষ। তারপরই ফের এই লাইনে ট্রেন চলাচল শুরু হবে। এদিন ঐতিহাসিক এই লাইনে পরিক্ষামূলকভাবে রেল ইঞ্জিন চালানোর সময় কয়েশ মানুষ সীমান্তে জড়ো হয়েছিলেন৷

- Advertisement -

হলদিবাড়ির পাশাপাশি কাঁটাতারের বেড়ার ওপারে বাংলাদেশের মানুষও হাজির হয়েছিলেন। আবেগে, উচ্ছ্বাসে ভেসে যান সকলে। কাঁটা তারের বেড়ার ওপারে দাঁড়িয়ে থাকা বাংলাদেশের চিলাহাটির বাসিন্দা রফিক ইসলাম, কামরা সরকার-রা বলেন, ‘‘আমরা আশাবাদী দ্রুত এই লাইনে পণ্যবাহীর পাশাপাশি যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলও শুরু হবে৷’’

বাসিন্দাদের মতে, চিলাহাটি স্টেশন থেকে বাংলাদেশ পর্যন্ত দু’কিমি রেল লাইন বসিয়ে দিলেই ভারতীয় সীমান্ত ছোঁবে এই লাইন। তবে বাংলাদেশের দিক থেকে ধীরগতিতে কাজ হওয়ায় হতাশ তাঁরা। হলদিবাড়ির বাসিন্দারাও চান, দ্রুত দুই দেশের রেললাইন জুড়ে যাক৷ চালু হোক যাত্রীবাহী ট্রেন৷ তাতে আবারও ফিরে আসুক পুরনো দিনের সেই কু ঝিক ঝিক আওয়াজ৷

Advertisement ---
-----