“২০১৪ থেকে একেবারে ভুল পথে চলতে শুরু করেছে ভারত”

নয়াদিল্লি: এগিয়ে যাওয়ার বদলে ক্রমশ পিছিয়ে পড়ছে দেশ। গতিশীল অর্থনীতি নয়, বরং ২০১৪ থেকে একেবারে ভুল দিকে ঝাঁপ দিয়েছে ভারত। লোকসভা নির্বাচনের আগে এই ভাষাতেই মোদী সরকারের বিরুদ্ধে প্রশ্ন তুলে দিলেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ নোবেলজয়ী অমর্ত্য সেন। তিনি বলেন, পিছিয়ে পড়তে পড়তে ক্রমশ ভারত এই অঞ্চলের দ্বিতীয় নিকৃষ্টতম দেশে পরিণত হয়েছে।

এক সাক্ষাৎকারে অমর্ত্য সেন বলেন, ‘সবকিছুই ভুল হয়েছে। ২০১৪ থেকে ভারত ক্রমশ ভুল পথে চলতে শুরু করেছে। দ্রুত উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশ ক্রমশ পিছনের দিকে চলতে শুরু করে।’ অর্থনীতিতে ভারতের অবস্থান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বছর ২০ আগে ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, নেপাল ও ভুটানের মধ্যে ভারত ছিল দ্বিতীয় স্থানে, শ্রীলঙ্কার ঠিক পরেই। আর আজ ভারত দ্বিতীয় নিকৃষ্টতম স্থানে পৌঁছেছে। পিছনে রয়েছে শুধু পাকিস্তান।’

অমর্ত্য সেন তাঁর লেখা বই ‘An Uncertain Glory: India and its Contradiction’-এর হিন্দি অনুবাদ ‘Bharat Aur Uske Virodhabhas’-এর উদ্বোধনে গিয়ে একের পর এক ইস্যুতে বিজেপি সরকারকে কটাক্ষ করেন। বাদ যায়নি জাতপাত, উপজাতি সংক্রান্ত বিষয়ও। তিনি উল্লেখ করেন, যারা নিজের হাতে নর্দমা পরিস্কার করে, সেই শ্রেনির কধা কানেও তোলেনি সরকার।

- Advertisement -

অর্থনীতিবিদ আরও বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের সময় দেখা যায়নি যে হিন্দুত্বের পরিচয় দিয়ে কেউ রাজনৈতিক লড়াগুতে জিতে যাচ্ছে। আর আজ সেসব বদলে গিয়েছে। তাঁর কথায়, ‘আজ বিরোধী জোটের বিষয়টা খুব গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।’ তাঁর মতে লড়াই আর শুধু নরেন্দ্র মোদী আর রাহুল গান্ধীর নয়, লড়াইটা সারা ভারতের।

এর আগেও একাধিকবার অমর্ত্য সেন বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। মোদীর নোট বাতিলের সিদ্ধান্তকেও সমর্থন করেননি তিনি।

ইংরেজি দৈনিক দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে অমর্ত্য সেন বলেছিলেন, ”শুধুমাত্র কোনও স্বৈরাচারী সরকারই এভাবে সাধারণ মানুষকে বিপাকে ফেলতে পারে। মোদী সরকারের নোট বাতিলের সিদ্ধান্তে দেখে মনে হচ্ছে দেশের প্রত্যেকটা মানুষের কাছেই কালো টাকা রয়েছে।”

Advertisement
----
-----