চাহালের দাপটে সস্তায় গুটিয়ে গেল অস্ট্রেলিয়া

মেলবোর্ন: যুবেন্দ্র চাহালের দুরন্ত বোলিংয়ে দিশেহারা অস্ট্রেলিয়া৷ এমসিজি’তে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে অসহায় আত্মসমর্পণ অজি ব্যাটসম্যানদের৷ সিরিজের নির্নায়ক ম্যাচে ৪৮.৪ ওভারে ২৩০ রানে অলআউট অস্ট্রেলিয়া৷ মেলবোর্নে এ যাবৎ ওয়ান ডে ক্রিকেটে ভারতের হয়ে সেরা বোলিং করেন চাহাল৷ একাই তুলে নেন ছ’টি উইকেট৷

অর্থাৎ ম্যাচ তথা অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে প্রথমবার দ্বিপাক্ষিক ওয়ান ডে সিরিজ জিতে ইতিহাস গড়তে ভারতের দরকার ২৩১ রান৷

আরও পড়ুন: বিজয় শংকরের অভিষেক, টসে জিতে বোলিং ভারতের

- Advertisement -

এর আগে দু’বার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ওয়ান ডে সিরিজে সাফল্য পেলেও দু’টি ক্ষেত্রেই তৃতীয় কোনও দল অংশ নিয়েছিল টুর্নামেন্টে৷ অর্থাৎ এর আগে কখনও অস্ট্রেলিয়ায় দ্বিপাক্ষিক ওয়ান ডে সিরিজ জেতেনি ভারত৷ সেদিক থেকে মেলবোর্নে ইতিহাস গড়ার হাতছানি ছিল ভারতের সামনে৷ সেই লক্ষ্যে এক পা বাড়িয়ে রাখল কোহলি অ্যান্ড কোং৷

সকাল থেকে দফায় দফায় বৃষ্টি৷ ফলে টস পিছিয়ে যায় মিনিট দশেক৷ আকাশে মেঘের ঘনঘটা চোখে পড়ার মতো৷ ম্যাচের মাঝেও বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা৷ অস্ট্রেলিয়ার তাজা পিচে এমন পরিবেশ-পরিস্থিতি যে ব্যাটসম্যানদের অনুকূল নয়, তা বলে দেওয়ার অপেক্ষা রাখে না৷

আরও পড়ুন: সুপ্রিম শুনানিতে পিছিয়ে গেল হার্দিক-রাহুলের মাঠে ফেরা

স্বাভাবিকভাবেই দুই ক্যাপ্টেন তাকিয়ে ছিলেন টসের দিকে৷ এক্ষেত্রে ভাগ্য সঙ্গ দেয় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির৷ সিরিজ নির্নায়ক ম্যাচে টসে জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিতে দু’বার ভাবেননি কোহলি৷ অজি দলনায়ক অ্যারন ফিঞ্চও জানান, টসে জিতলে ভারতকে ব্যাট করতে পাঠাতেন তিনি৷ অর্থাৎ প্রথমে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নিতেন তিনিও৷ আপাতত ভাগ্য বিমুখ হওয়ায় কঠিন পরিস্থিতিতে ব্যাটিংয়ের তিতো ওষুধ গিলতে হয় অজিদের৷

কোহলির সিদ্ধান্ত যে মোটেও ভুল ছিল না, তা বোঝা যায় অজি ইনিংসের দিকে তাকালেই৷ দুই ওপেনার অ্যালেক্স ক্যারি (৫) ও অ্যারণ ফিঞ্চকে (১৪) ফিরিয়ে দেন ভুবনেশ্বর৷ তার পরেই শুরু হয় চাহাল রাজ৷

আরও পড়ুন: মেলবোর্নেও ইতিহাসের হাতছানি বিরাটদের

একে একে খোওয়াজা (৩৪), শন মার্শ (৩৯), হ্যান্ডসকম্ব (৫৮), স্টোইনিস (১০), রিচার্ডসন(১৬) ও জাম্পার (৮) উইকেট তুলে নেন যুবেন্দ্র৷ সব মিলিয়ে ১০ ওভারে ৪২ রানের বিনিময়ে ৬টি উইকেট নেন তিনি৷ একদিনের ক্রিকেটে মেলবোর্নে কোনও ভারতীয় বোলারের এটিই যুগ্মভাবে সেরা বোলিং পারফরম্যান্স৷এর আগে অজিত আগরকর এমসিজি’তে ৪২ রানে ৬ উইকেট নিয়েছিলেন৷শেষে ম্যাক্সওয়েল ও স্ট্যানলেককে ফিরিয়ে অজি ইনিংসে দাঁড়ি টেনে দেন শামি৷