‘পাকিস্তানের বন্ধুত্বপূর্ণ ডাকে ইতিবাচক সাড়া দেওয়া উচিত ভারতের’

ফাইল ছবি

শ্রীনগর: ভারত যদি এক পা এগোয়, পাকিস্তান দু পা এগোবে৷ প্রধানমন্ত্রী হয়ে ভারতের উদ্দ্যেশে বন্ধুত্বপূর্ণ বার্তা দিয়েছিলেন ইমরান খান৷ সেই বার্তার সূত্র ধরেই রবিবার কেন্দ্রকে পরামর্শ দিলেন জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ও পিডিপি নেত্রী মেহবুবা মুফতি৷

তিনি বলেন পাকিস্তানের বার্তায় ইতিবাচক সাড়া দেওয়া উচিত ভারতের৷ তবেই কাশ্মীরে শান্তি ফিরবে বলে মত প্রকাশ করেন তিনি৷ জি নিউজের সাথে কথা বলার সময়ে মেহবুবা তাঁর বাবার উল্লেখ করেন৷ তিনি বলেন মুফতি মহম্মদ সইদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হতে চাননি৷ কিন্তু রাজ্যের মানুষের স্বার্থের কথা ভেবে তিনি এই পদক্ষেপ নিয়েছিলেন৷ তেমনই ভারতেরও কাশ্মীরের মানুষের স্বার্থের কথা ভেবে পাকিস্তানের সঙ্গে বন্ধুত্বের পথে হাঁটা উচিত৷

তিনি এও বলেন পিডিপি বিজেপি জোট থাকার সময়ে পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো হয়েছে ভারতের৷ সেকথা যেন কেন্দ্র মাথায় রাখে৷ সেভাবেই মোদী সরকারকেও এগোতে হবে পাকিস্তানের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ার ক্ষেত্রে৷

এদিন রাজ্যে আসন্ন পঞ্চায়েত ভোট নিয়েও মুখ খোলেন মেহবুবা মুফতি৷ তিনি বলেন নির্বাচনের আগে সদ্য নির্বাচিত রাজ্যপাল সত্য পাল মালিক যদি সর্বদলীয় বৈঠক ডাকেন, তবে তা রাজ্যের গণতান্ত্রিক পরিকাঠামোর পক্ষে সহায়ক হবে৷

এরআগেও, মেহবুবা মুফতি বলেছিলেন শান্তি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা অত্যন্ত জরুরি৷ তিনি আবেদন জানিয়ে ছিলেন, কাশ্মীরের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেওয়া উচিত৷ পিডিপি প্রধান মেহবুবা মুফতি এও জানান, ভারত-পাকিস্তান, এই দুই দেশের মধ্যে শান্তি বজায় রাখতে নরেন্দ্র মোদীকে প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর দেখানো পথেই চলা উচিত৷

রাজৌরিতে একটি জনসভাতে বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে মুফতি বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তিস্থাপন তখনই সম্ভব যখন জম্মু-কাশ্মীরে শান্তি স্থাপিত হবে৷ তাঁর মতে, যখন বাজপেয়ী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখন ভূস্বর্গ সমৃদ্ধ হয়েছিল, কিন্তু মোদীর নেতৃত্বে বিজেপির সঙ্গে হাত মেলানোর পরেও তাঁকে সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছিল৷ পিডিপির ১৯তম প্রতিষ্ঠা দিবসে এক জনসভায় তিনি জানান, বিজেপির সঙ্গে জোটে যাওয়া বিষপানের সমান ছিল তাঁর কাছে৷

----
-----