নয়াদিল্লি: এবার সুনামির ভবিষ্যদ্বাণী করবে ভারত, যার ফলে বহু প্রাণ বাঁচিয়ে আটকানো যাবে প্রভূত ক্ষয়ক্ষতি, এমনটাই আশা করা হচ্ছে৷ INCOIS-এর ডিরেক্টর এসএসসি শেনোই জানান, ভূ-বিজ্ঞান মন্ত্রকের দ্য ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল সেন্টার ফর অশিয়ান ইনফরমেশন সার্ভিসেস-এর পক্ষ থেকে এই ভবিষ্যদ্বাণী করার জন্য একটি মডেল তৈরি করা হয়েছে৷ ২০০৪ সালে ভয়াবহ সুনামির পর থেকেই লেভেল-৩-এর সতর্কতা জারির প্রক্রিয়া শুরু হয়৷

প্রসঙ্গত, এক্ষেত্রে লেভেল ১- কোনও সুনামির তীব্রতার বিষয়ে জানায়, লেভেল ২- কোনও সম্ভাব্য সুনামি এবং তার জেরে হওয়া ঢেউয়ের উচ্চতার বিষয়ে সতর্কতা জারি করে৷

Advertisement

পড়ুন: খুব শিগগিরই ভিনগ্রহীদের সাক্ষাৎ পেতে চলেছে নাসা?

২০০৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর, ইন্দোনেশিয়ার কাছে ভারত মহাসাগরের নীচে ৯.১ ম্যাগনিটিউড তীব্রতায় ভমিকম্প হয়, যার ফলেই ভয়াবহ সুনামি হয়৷ এই সুনামিতে প্রায় ৩০মিটার উচ্চতায় ঢেউ আছড়ে পড়ে উপকূলে৷ দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলিতে প্রায় ২ লক্ষেরও বেশি প্রাণ যায়৷

শেনোই জানান, ঢেউ নিয়েই একটি মডেল তৈরি করা হয়েছে, যার সাহায্যে সহজেই বলা সম্ভব হবে এই ঢেউ, সমুদ্রসৈকতে কতদূর পর্যন্ত যাবে, এবং স্থানভিত্তিক সতর্কবার্তাও জারি করা যাবে৷ তবে দেশগুলি তাদের উপকূলের টোপোগ্রাফি ডেটা না পাঠালে এই সতর্কতা বার্তা দেওয়া সম্ভবপর হবে না বলেই জানা গিয়েছে৷

----
--