ধন্যবাদ জানিয়ে আরবের ৭০০ কোটি ফেরাল ভারত

নয়াদিল্লি: দক্ষিণের রাজ্য কেরলের বন্যা দুর্গতদের সাহায্যার্থে কোনও রাষ্ট্রের সাহায্য নেবে না ভারত। সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে। যার অর্থ কেরলের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর ৭০০ কোটি টাকা নিচ্ছে না ভারত।

আরও পড়ুন- টিফিনের পয়সা জমিয়ে কেরলের পাশে ক্ষুদে স্কুল পড়ুয়ারা

কেরলে বন্যা দুর্গতদের জন্য ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সাহায্য করার কথা বলে সংযুক্ত আরব আমিরশাহী। ভারতীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ৭০০ কোটি। এছাড়াও কাতারের পক্ষ থেকে ৩৫ কোটি এবং মালদ্বীপের পক্ষ থেকে ৩৫ লক্ষ টাকা সাহায্য করার ঘোষণা করা হয়।

যদিও সেই অর্থ ভারত সরকার গ্রহণ করবে কিনা তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছিল। কারণ কেন্দ্রের পক্ষ থেকে এই বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছুই বলা হয়নি। যদিও দিল্লি যে প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করতে চলেছে তাও অনুমান করা গিয়েছিল। বৃহস্পতিবার সেই বিষয়টি নিশ্চিত করে দিয়েছেন বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র রাভিস কুমার।

আরও পড়ুন- কেরলের জন্য কাঁটাতার পেরিয়ে সাহায্য আসছে ভারতে

সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে জানা গিয়েছে যে কোনও কেরলের জন্য কোনও বিদেশি সাহায্য নেওয়া হবে না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকার। দেশীয় অর্থেই বন্যা কবলিত কেরলকে নতুন রূপ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দিল্লি। এমনই জানিয়েছেন রাভিস কুমার। একই সঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “বিদেশে বসবাসকারী ভারতীয় বা ভারতীয় বংশোদ্ভূতদের প্রেরিত আর্থিক সাহায্য গ্রহণ করা হবে।”

আরও পড়ুন- কেরলের বন্যার্তদের পাশে থাকার আশ্বাস পাক প্রধানমন্ত্রীর

বন্যায় বিপর্যস্ত কেরলের পাশে দাঁড়ানোর কথা ঘোষণা করার জন্য সকল রাষ্ট্রগুলিকে ধন্যবাদ জানিয়েছে ভারত। দিল্লির পক্ষ থেকে সেই বার্তা দিয়েছেন রাভিস কুমার। তাঁর কথায়, “কেন্দ্রের গৃহীত নীতির কারণে আমরা অন্য কোনও রাষ্ট্রের সাহায্য গ্রহণ করব না। তবে আমাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এই ভয়াবহ বন্যায় আমাদের সাহায্য করতে এগিয়ে আশার জন্য সকল রাষ্ট্রগুলিকে অসংখ্য ধন্যবাদ।”

২০১৩ সালে দ্বিতীয় ইউপিএ জামানায় উত্তরাখণ্ডে ভয়াবহ বন্যা হয়েছিল। সেই সময়েও কোনও রাষ্ট্রের সাহায্য নেয়নি দিল্লি। একই ছবি দেখা গিয়েছিল ২০০৫ সালে সুনামির সময়েও। সেই সময় দিল্লিতে প্রথম ইউপিএ সরকারের রাজত্ব ছিল।

আরও পড়ুন- কেরলের বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ালেন প্রাক্তন বনকর্মী

Advertisement
----
-----