মিসাইল-রকেট নিয়ে এবার চিন সীমান্তে উড়বে ১০টি ‘ধ্রুব’

গুয়াহাটি: চিনকে প্রতিহত করতে উত্তর-পূর্ব নয়া ফ্লিট নামাচ্ছে ভারত। অসমের লিকাবলি টাউনে মোতায়েন করা হচ্ছে ‘ধ্রুব’ অ্যাডভান্সড লাইট হেলিকপ্টারের একটা স্কোয়াড্রন। এটাই হবে উত্তর-পূর্বে ভারতের প্রথম সশস্ত্র হেলিকপ্টার।

ভারত দীর্ঘদিন ধরেই উত্তর-পূর্বে সামরিক ঘাঁটি পোক্ত করতে চেষ্টা করছে। চিন সীমান্তে মোতায়েন করার জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে নতুন মাউন্টেন স্ট্রাইক কর্পস। এছাড়া রাখা হবে সুখোই-৩০ ফাইটার প্লেন। মোতায়েন করা হচ্ছে সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল ও স্পেশাল অপারেশন ক্রাফট। জানা গিয়েছে ধ্রুব-এর স্কোয়াড্রনে থাকবে ভারতে তৈরি ১০টি হেলিকপ্টার। আগামী ২-৩ মাসের মধ্যেই কার্যকর হবে সেগুলি। হেলিকপ্টারগুলিতে থাকবে চারটি ওয়েপন স্টেশন। নোজ এরিয়াতে থাকবে একটি টারেট গান। এতে থাকবে এয়ার টু এয়ার মিসাইল, ৭০ এমএম রকেট ও ২০ এমএম টারেট গান। আরও জানা গিয়েছে যে নতুন হেলিকপ্টারগুলিতে অ্যান্টি ট্যাংক গাইডেড মিসাইল ও ইনফ্রারেড জ্যামারও থাকবে। সেনাবাহিনীর অ্যাভিয়েশন বিভাগের একটি সশস্ত্র চপার স্কোয়াড্রন রয়েছে যোধপুরে।

এছাড়া এবছরের শেষে লাদাখের বরফ ঢাকা শৃঙ্গে হবে যুদ্ধ মহড়া। সূত্রের খবর, আগামী তিন বছররে মধ্যে চিন সীমান্তে সম্পূর্ণভাবে কার্যকর হবে ৭২ ইনফ্যান্টরি ডিভিশন, যার হেডকোয়ার্টার পাঠানকোটে। প্রথমে একটি ব্রিগেড কাজ কর শুরু করবে। পরে তিনটি ব্রিগেড একসঙ্গে মোতায়েন থাকবে। ২০১৪ থেকেই চিনের বিরুদ্ধে সৈন্য সাজাতে ১৭ মাউন্টেন কর্পস গঠন করতে শুরু করে ভারত।

- Advertisement -

২০২১-এর মধ্যে তৈরি হবে এই ১৭, মাউন্টেন কর্পস। এই বাহিনীর কাছে থাকবে অস্ত্র, কামান, হেলিকপ্টার। লাদাখ থেকে অরুণাচল পর্যন্ত কাজ করবে ইঞ্জিনিয়ার ব্রিগেড। মোট ৬৪,৬৭৮ কোটি টাকা খরচে তৈরি হচ্ছে এই বাহিনী। এতে থাকবে মোট ৯০,২৭৪ সেনা জওয়ান। চিনের পিপলস লিবারেশন আর্মির বিরুদ্ধে যে কোনও সময় যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকতে ওই বাহিনীর হাতে থাকবে অগ্নি পরমাণু মিসাইল, ফাইটার জেট, ট্যাংক, ব্রহ্মোস সুপারসনিক মিসাইলের মত আধুনিক অস্ত্রশস্ত্র। নতুন ১৭ কর্পসের মধ্যে থাকবে ৫৯ ইনফ্যান্টরি ডিভিশন। যাদের পশ্চিমবঙ্গের পানাগড়ে তৈরি করা হয়েছে। এবার তৈরি হচ্ছে ৭২ ডিভিশন।

Advertisement
---