প্রিমিয়র লিগে মজে টিম ইন্ডিয়া

এমিরেটস স্টেডিয়ামের সামনে বুমরাহ৷ ছবি-টুইটার

লন্ডন: প্রথম দুই টেস্টে হারের পর ট্রেন্ট ব্রিজে তৃতীয় টেস্ট জিতে সিরিজে প্রত্যাবর্তন করেছে ভারত। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর সাউদাম্পটনে শুরু হতে চলেছে সিরিজের চতুর্থ টেস্ট। যার ফলাফলের উপর নির্ভর করছে সিরিজের ভবিষ্যৎ।

আরও পড়ুন: প্রয়াত বাংলার প্রাক্তন ক্রিকেটার গোপাল বসু

সাউদাম্পটন টেস্টে পদস্খলন মানেই সিরিজ হার অবশ্যম্ভাবী৷ জিতলে শেষ টেস্টের আগে কড়া চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেওয়া যাবে রুটদের। সবমিলিয়ে চতুর্থ টেস্ট কোহলিদের কাছে আক্ষরিক অর্থেই অ্যাসিড টেস্ট। সেই অগ্নিপরীক্ষার আগে চাপ কাটাতে ফুটবল মাঠে ভারতীয় ক্রিকেটাররা।

- Advertisement -

ভারতীয় ক্রিকেট দলে ফুটবল নিয়ে উন্মাদনা নেহাৎ কম নয়। প্র্যাকটিসের ফাঁকে নিয়মিত ফুটবল খেলা ছাড়াও মাঝে মধ্যেই চ্যারিটি ফুটবল ম্যাচে বলিউড তারকাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামতে দেখা যায় টিম ইন্ডিয়ার তারকাদের৷ ভারত অধিনায়ক কোহলি জার্মানির একজন অন্ধ ভক্ত। ইন্ডিয়ান সুপার লিগের সঙ্গেও প্রত্যক্ষভাবে জড়িয়ে রয়েছেন তিনি৷

আরও পড়ুন: স্পনসরের দাদাগিরিতে মারাদোনা স্টেডিয়ামের নামবদল

তালিকায় নাম রয়েছে লোকেশ রাহুলেরও। সম্প্রতি ছুটির ফাঁকে চেলসির ফরাসি মিডফিল্ডার এনগোলো কান্তের সঙ্গে দেখা করেন টিম ইন্ডিয়ার তারকা ওপেনার। ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে কান্তের সঙ্গে নিজের একটি ছবি পোস্ট করেন রাহুল। কান্তেকে ‘চ্যাম্পিয়ন’ বলে সম্বোধন করে তিনি লেখেন, ‘ক্রিকেট ও ফুটবল নিয়ে কথা হল চ্যাম্পিয়নের সঙ্গে। নিজের মুখেই শোনাল তাঁর বিশ্বকাপ অভিজ্ঞতার কথা। আমি চেলসি অনুরাগী না হওয়ায় একটু হতাশ, তবে ভীষণই ভদ্র। সম্মান জানাই।’

আরও পড়ুন: আইএসএলের উদ্বোধনে সচিন-সৌরভ দ্বৈরথ

চাপ কাটাতে ফুটবলে মনোনিবেশ করেন ভারতীয় দলের বাকি কয়েকজন ক্রিকেটারও। প্র্যাকটিস ছেড়ে শনিবার বিকেলে তারা পৌঁছে যান এমিরেটস স্টেডিয়ামে। সেখানে রাহুলের সঙ্গী ছিলেন জসপ্রীত বুমরাহ ও উমেশ যাদব। প্রিমিয়র লিগে ওয়েস্ট হ্যামের বিরুদ্ধে আর্সেনালের জয় তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করলেন এই তিন ভারতীয় ক্রিকেটার।

আরও পড়ুন: রোনাল্ডোর পায়ে গোলের অপেক্ষায় ফুটবল দুনিয়া

রাহুল, বুমরারা যখন ফুটবলে মত্ত তখন শিখর ধাওয়ান ও শার্দুল ঠাকুরের সঙ্গে নিজের একটি ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করলেন ঋষভ পন্ত। অভিষেক টেস্টে ট্রেন্ট ব্রিজে উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়েই রেকর্ড করেছেন তিনি। প্রথম ভারতীয় উইকেটরক্ষক হিসেবে কেরিয়ারের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসেই পাঁচটি ক্যাচ নেওয়ার নজির গড়েন তিনি।

Advertisement
---