নয়াদিল্লি: এজবাস্টনের পর লর্ডসে লজ্জার হার৷ যে মঞ্চে সিরিজে প্রত্যাবর্তনের কথা ছিল বিরাটদের সেখানেই লজ্জায় মুখ ঢাকল টেস্টের এক নম্বর দল৷ পাঁচ ম্যাচের সিরিজে কোহলিরা পিছিয়ে পড়ল ০-২ ব্যবধানে৷ কোহলি অবশ্য এখনও সিরিজ জয়ের আশা রাখছেন৷ বিরাট যতই কামব্যাকের মন্ত্র শোনান না কেন, অনুরাগীরা কিন্তু হতাশায় তাঁর উপর থেকে আস্থা হারাচ্ছেন৷ ব্যাটসম্যান বিরাটকে নিয়ে সমস্যা নেই অনুরাগীদের৷ তাঁর ব্যাটেই এজবাস্টনে লড়াই করেছিল ভারত৷ কিন্তু নেতা বিরাটকে নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে নেটিজেন৷ ভারতীয় দলের নেতৃত্বে বদলের ডাক দিচ্ছেন তাঁরা৷

তবে নতুন নেতা নয়, প্রাক্তন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকেই টেস্ট কাপ্তান হিসেবে ফের দেখতে চাইছেন ভারতীয় ক্রিকেট অনুরাগীরা৷ লর্ডসে টেস্ট হারের পর অনেকেই লিখেছেন এখনও টেস্ট ক্রিকেটে মাহির অনেক কিছু দেওয়ার আছে৷ বিশেষ করে বিদেশের মাটিতে নেতা হিসেবে ধোনিকে প্রয়োজন৷

অনেকে ধোনির সঙ্গে কোহলির তুলনা করেছেন৷ বলছেন, অতীতে ধোনির আমলেও ইংল্যান্ডের মাটিতে ০-৪ টেস্ট হেরেছে ভারত৷ তবে বল নড়তেই এভাবে ভারতীয় দলকে লজ্জাজনক পরিস্থিতিতে পরতে দেখা যায়নি৷ নূন্যতম লড়াই করেছিল ধোনির ভারত৷ ব্রড-অ্যান্ডারসনদের সুইংয়ে রাহুল, রাহানে, ধাওয়ান, পূজারা, বিজয়, দীনেশরা যেভাবে উইকেট উপহার দিচ্ছেন তাঁকে সত্যিই ক্রিকেটীয় স্কিল নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷ দলের চরম সংকটে দিশেহারা অবস্থা বিরাটের৷ সেই সঙ্গে কোহলির দল নির্বাচন নিয়েও প্রশ্ন উঠছে৷ এখনও পর্যন্ত ৩৫ টেস্টে অধিনায়কত্ব করেছেন বিরাট৷ ৩৭ টেস্টে ৩৭ রকম দল খেলিয়েছেন ভারতীয় এই নেতা৷

লর্ডস টেস্টের প্রথম দিন বৃষ্টিতে ধুয়ে যাওয়ার পর হাতে বাকি চারদিন৷ সেখানে জোড়া স্পিনারে কেন গেলেন কোহলি৷ এজবাস্টনে স্পিনাররা সাহায্য পেয়েছিল৷ সেই উইকেটে এক স্পিনার খেলিয়েছিলেন বিরাট৷ প্রায়শ্চিত্ত করতেই কি ক্রিকেট মক্কায় কোহলির জোড়া স্পিনার খেলানোর সিদ্ধান্ত! বদলে উমেশকে খেলানো হলে হয়ত এমন লজ্জার মুখে পড়তে হত না৷

এর আগে এজবাস্টনে পূজারাকে বসিয়ে ফর্মে না থাকা ধাওয়ানকে খেলান বিরাট৷ সেই নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করে৷ টেস্ট কাপ্তান হিসেবে কোহলির দুর্নাম, তিনি নাকি পরপর দুই টেস্টে দল রিপিট করেন না৷ সেই নিয়েও প্রশ্ন উঠছে৷ দক্ষিণ আফ্রিকায় ফর্মে থাকা ভুবনেশ্বরকে বসিয়ে সেঞ্চুরিয়ন টেস্টে ইশান্তকে সুযোগ দিয়েছিলেন বিরাট৷ ফের জোহানেসবার্গে দলে ফেরানো হয় ভুবিকে৷ জোবার্গে ব্যাটে-বলে ভুবির দুরন্ত পারফর্ম্যান্সে ৬৩ রানে ম্যাচ জিতেছিল ভারতীয় দল৷ কোহলির আমলে যেমন একই দল পরপর দুই টেস্টে দেখা যায় না, ধোনির জমানায় ঠিক উল্টো চিত্র দেখা যেত৷ মাহি আবার দলে একাধিক পরিবর্তন নিয়ে মাথা ঘামাতেন না৷ বিরাট যখন অধিনায়ক হিসেবে সৌরভের ২২ টেস্ট জয়ের রেকর্ড টপকে যাওয়ায় দোড়গোড়ায় তখনই ‘বিরাট’ মোহভঙ্গ অনুরাগীদের, নেতা ধোনিতে আস্থা রাখছেন তারা৷

https://twitter.com/pratv14891/status/1028315246010626049

----
--