নয়াদিল্লি: জমি জটে আটকে রয়েছে মুম্বই-আহমেদাবাদ হাই স্পিড রেল করিডর তৈরির কাজ৷ তবে তাতে থেমে নেই বুলেট ট্রেনের গড়ে ওঠার পরিকল্পনা৷ ভারতীয় রেল প্রস্তাবিত বুলেট ট্রেনে কি কি থাকছে, জানেন? বেশ কিছু নতুন ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে যাত্রীদের জন্য৷

বিশেষত নতুন মায়েদের জন্য থাকছে ব্যবস্থা৷ থাকছে স্তন্যদান করার আলাদা কোচ৷ এছাড়াও শারীরিক ভাবে অক্ষমদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে৷ মহিলা ও পুরুষদের জন্য রাখা হবে আলাদা টয়লেট৷ ভারতীয় রেলে এই ধরণের ব্যবস্থা এই প্রথম বলে জানালেন এক রেল আধিকারিক৷

বিজনেজ ক্লাসে থাকছে ৫৫টি সিট৷ স্ট্যান্ডার্ড ক্লাসের জন্য থাকবে ৬৯৫টি সিট৷ থাকবে যাত্রীর লাগেজ রাখার আলাদা ব্যবস্থা৷ ই৫ সিরিজের এই ট্রেনগুলিতে শিশুদের জন্যও বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে৷ শিশুদের জন্য আলাদা টয়লেটের ব্যবস্থা রাখা হবে৷ এছাড়াও শিশুদের কাপড় বদলানোর জন্য আলাদা কুপ ও হাত ধোওয়ার জন্য নীচু বেসিনের ব্যবস্থা রাখা হবে বলে জানা গিয়েছে৷

এছাড়াও শিশুদের জন্য বিশেষ ভাবে তৈরি ওই কোচে থাকবে সদ্যোজাতদের ডায়াপার বদলের আলাদা মেশিন৷ ট্রেনটিতে ১০টিতে কোচ থাকবে৷ সেখানে থাকবে শারীরিক ভাবে অক্ষমদের জন্য আদালা টয়লেটের ব্যবস্থা৷ যে মূল খসড়া রয়েছে, তাতে বলা হয়েছে, এই প্রজেক্টের জন্য ১ লক্ষ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে৷ .

সিটগুলিতে থাকবে স্বয়ংক্রিয় রোটেশন সিস্টেম৷ থাকবে ফ্রিজ, খাবার গরম করার ব্যবস্থা, গরম জলের ব্যবস্থা৷ যা যাত্রীরা নিজেরাই নিয়ে নিতে পারবেন৷ এছাড়াও চা ও কফি তৈরির মেশিন থাকবে, যেখান থেকে যাত্রীরা যখন খুশি ইচ্ছেমত চা কফি খেতে পারবেন৷ অবশ্য এই সুবিধা থাকবে বিজনেস ক্লাসে৷ স্ট্যান্ডার্ড ক্লাসে এই সুবিধা পাবেন না যাত্রীরা৷

প্রতিটি কোচে থাকবে বড় এলসিডি স্ক্রিনের ব্যবস্থা৷ যেখানে পরবর্তী স্টেশন, ট্রেন শিডিউল, গন্তব্য ও পৌঁছনোর সম্ভাব্য সময় লেখা থাকবে৷ এই ধরণের ২৫টি ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে রেল মন্ত্রকের৷
জাপান থেকে ট্রেনগুলি নিয়ে আসা হবে বলে খবর৷ ইতিমধ্যে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রাথমিক চুক্তি হয়েছে ভারতে বুলেট ট্রেন চালানোর জন্য৷ মাটির ওপর দিয়েই ছুটবে এই বুলেট ট্রেন৷

তবে থানে থেকে ভিরারের মধ্যে একটি টানেলে প্রবেশ করবে বুলেট ট্রেন৷ প্রায় ২১ কিমি দৈর্ঘ্যের এই টানেলের ৭ কিমি থাকবে সমুদ্রের তলায়৷ বান্দ্রা কুরলা কমপ্লেক্স স্টেশন থেকে এই ট্রেন টানেলের মধ্যে ঢুকবে৷ তারপর থানের কাছে গিয়ে ফের মাটির ওপর উঠবে এই ট্রেন৷

তবে আপাতত জমি জট কবে কাটবে ও এই ট্রেন প্রকল্প কবে বাস্তবায়িত হবে, সেটাই দেখার৷

----
--