নয়াদিল্লি: নিম্নমানের খাদ্য পরিবেশনের জন্য ১৬টি খাদ্য সরবরাহ সংস্থার সঙ্গে সর্ম্পকে ইতি টানল রেল মন্ত্রক৷ রাজ্যসভায় এমনটাই জানান সাংসদ রাজেন গোহেন৷ প্রমান হিসেবে তাঁর হাতে এসেছে একটি ভিডিও৷ যেটি অবশ্য ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল দুনিয়ায়৷ যেখানে বিক্রেতাদের ট্রেনের টয়লেট থেকে চায়ের ক্যানসহ বেরিয়ে আসতে দেখা গিয়েছে৷

গত মে মাসে চার্মিনার এক্সপ্রেসে ঘটনাটি ঘটেছিল৷ মন্ত্রক জানাচ্ছে, চা বা অন্য পানীয় তৈরির জন্য টয়লেটের জল ব্যবহার করে হচ্ছে না, এর সঠিক কোন তথ্য পাওয়া যায়নি৷ ট্রেনে বিক্রেতাদের যথেচ্ছাচার বন্ধ করতে কড়া পদক্ষেপ নেবে কর্তৃপক্ষ৷

২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে মোট ১৬ টি খাদ্য সরবরাহ সংস্থা সঙ্গে চুক্তিকে শেষ করেছে রেল মন্ত্রক৷ শুধু তাই নয়, সঠিক পরিষেবা দিতে ব্যর্থ হওয়ার কারণে জরিমানা করা হয়েছে ৪.৮৭ কোটি টাকা৷ যার মধ্যে নিম্নমানের খাদ্য, অস্বাস্থ্যকরভাবে তৈরির প্রসঙ্গটিও বার বার উঠে এসেছে৷ সাংসদ যোগ করেন, এই ধরণের প্রচলিত ব্যবস্থাকে বন্ধ করতে জিরো-টলারেন্স পলিসির কঠোর বাস্তবায়ন হবে৷

মন্ত্রী বলেন, ‘ উন্নতমানের এবং স্বাস্থ্যকর খাদ্য যাতে রেলযাত্রীরা পান, সেজন্যই আধুনিক প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে একটি প্রচেষ্টা চালাচ্ছে রেল৷ যেখানে নিয়মিত পরীক্ষা করা হবে রেলে পরিবেশিত খাদ্যের গুণমান এবং প্রয়োজনে অভিযোগও করতে পারবেন যাত্রীরা৷’

----
--