শহরে স্যার রাজেনের জন্মদিন পালনের উদ্যোগ

কলকাতা: বাঙালি ব্যবসা করে না বলেই বদনাম৷ যদিও তার চেয়েও বড় সমস্যাটা হল কোনও বঙ্গ সন্তান ব্যবসা করে সফল হলেও তাঁকে মনে রাখার চেষ্টা করে না এই জাতি ৷ তাই ক্রমশই বিস্মৃতির আড়ালে চলে গিয়েছেন স্যার রাজেন্দ্রনাথ মুখার্জিও৷

কর্পোরেশনের মুখ্য ইঞ্জিনিয়ার স্যার ব্রাডফোর্ড লেসসির সঙ্গে দেখা হওয়ার সূত্রে পলতার জল প্রকল্প গড়ার হাত ধরে তাঁর ব্যবসায় অভিষেক৷ তারপর থেকেই ধীরে ধীরে বাণিজ্যের দুনিয়ায় রাজেনের সাম্রাজ্য বিস্তার চলতে থাকে ৷

আরও পড়ুন: স্কুলের সামনে সিগারেট বিক্রি! শীঘ্রই শুরু ধরপাকড়

লখনউ, এলাহাবাদ, আগ্রা, কানপুর জলপ্রকল্প তৈরি করে গোটা দেশে তাঁর কাজের খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে৷ স্যার টমাস অ্যাকুইনাস মার্টিনের সঙ্গে অংশীদারিত্বে ১৮৯২ সালে মার্টিন অ্যান্ড কোম্পানি গড়ে তুলে ব্যবসার পরিধিও আরও বাড়িয়ে ফেলেন৷

এদিকে ১৯০৬ সালে মার্টিন মারা গেলে রাজেন্দ্রনাথই হন ওই সংস্থার সিনিয়র পার্টনার৷ এই মার্টিন অ্যান্ড কোম্পানি সেই সময় কলকাতা ও নানা শহরে বিভিন্ন বড় বড় অট্টালিকা গড়ে তোলে৷ দেখা যায় কলকাতা শহরের পরিচয় বহনকারী ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল,হাওড়া ব্রিজ, বেলুড়মঠ ও মন্দির, বিধানসভা ভবন সব নির্মাণেই রয়ে গিয়েছে স্যার রাজেনের সংস্থার অবদান৷

সেই সময় ব্রিটিশ সরকার ভারতে রেলপথ চালু করলেও তা মূলত বড় বড় শহরকে যুক্ত করেছে৷ কিন্তু সে যুগে বসেও রাজেন অনুভব করেছিলেন শহরের সঙ্গে আশে পাশে গাঁ গঞ্জকেও রেলপথে যুক্ত করতে হবে৷ তাই মার্টিন লাইট রেলওয়ে নামে বেসরকারি উদ্যোগ সংযোগী ন্যারোগেজ রেল পরিষেবা দিতে সংস্থা গড়ে তোলেন৷

আরও পড়ুন: রাতের কলকাতায় বিদ্যুৎ বিপর্যয়, প্রতিবাদে পথ অবরোধ

আবার পূর্ত বিভাগের বিভিন্ন বরাত পাওয়া কাজ করতে গিয়ে রাজেন্দ্রনাথও অনুভব করলেন লৌহ ইস্পাত কারখানা কতটা জরুরি৷ তাই তিনি ও তার মার্টিন অ্যান্ড কোম্পানি ১৯১৮ সালে গড়ে তোলেন ইস্কো, যার বার্ণপুরের কারখানাটিই দেশের দ্বিতীয় ইস্পাত কারখানা৷

তবে শিল্প-বাণিজ্যের পাশপাশি রাজেন্দ্রনাথ খেলাধূলার জগতের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন৷ ফলে এই মানুষটি সভাপতি হয়েছিলেন বেঙ্গল অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন, বেঙ্গল ফ্লাইং ক্লাব, মোহনবাগান ক্লাবের মতো সংগঠনের৷ আবার শিক্ষা বিস্তারের দিকেও তাঁর নজর ছিল৷ ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স (ইন্ডিয়া), ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইনস্টিটিউটের প্রতিষ্ঠায় তাঁর একটা ভূমিকা ছিল৷

আরও পড়ুন: মেট্রো স্টেশনে ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণে ছড়াল আতঙ্ক

আগামী শনিবার ২৩জুন বিস্মৃতির আড়ালে থাকা এই মহান শিল্পপতির ১৬৫তম জন্মদিন পালনে উদ্যোগী হয়েছেন স্যার রাজেনের অনুরাগী এই শহরের কিছু মানুষ৷ তাঁদের উদ্যোগের ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল প্রাঙ্গনে রাজেন মুখার্জির মূর্তির সামনে সকাল নটায় এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে৷ ফুল ও পুষ্পস্তবক দিয়ে তাঁকে শ্রদ্ধা জানানোর পাশাপাশি তাঁর সম্পর্কে বক্তব্য রাখবেন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ৷ আবার ওইদিন ইনস্টিটিউশন অফ ইঞ্জিনিয়ার্স (ইন্ডিয়া)-এর উদ্যোগে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় কলকাতায় স্যার রাজেন মুখার্জি হলে তাঁর জন্মবার্ষিকী পালন করা হবে৷

আরও পড়ুন: মরুভূমিতে জয়গাথা রচনা রাশিয়ার

----
-----