শত্রুর যে কোনও হামলার জবাব দিতে আরও শক্তিশালী হচ্ছে ভারতের INS Vikrant

নয়াদিল্লি: কোচিন শিপইয়ার্ডে, বৃহস্পতিবার, ভারতের প্রথম দেশীয় এয়ারক্র্যাফ্ট ক্যারিয়ার আইএনএস-বিক্রান্ত-কে নিয়ে পর্যালোচনা করেন ভারতীয় নৌবাহিনীর প্রধান অ্যাডমিরাল সুনীল লান্বা৷ নৌবাহিনীর মতে, ২০১৯ সালের মধ্যে চল্লিশ হাজার টন এয়ারক্র্যাফ্ট ক্যারিয়ার সম্পূর্ণরূপে চালু হতে পারে৷

আরও পড়ুন: কম সময়ের নোটিশেই যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত: বায়ুসেনা প্রধান

বিক্রান্ত সংক্রান্ত বিভিন্ন নির্মাণ কর্মকান্ডে অংশ নিয়েছিলেন অ্যাডমিরাল লান্বা৷ উল্লেখ্য, ১৯৬১ সালে যুক্তরাজ্যের কাছ থেকে অর্জিত প্রথম ভারতীয় বিমানের নামকরণ করা হয়েছিল বিক্রান্তের নামে৷ শত্রুপক্ষের পরমাণু, রাসায়নিক বা জৈব অস্ত্রের হামলা থেকে বাঁচার জন্য এই জাহাজটি তৈরি করা হয়, যা আমেরিকা, রাশিয়া, ইংল্যান্ড, ফ্রান্সের মতো দেশগুলির সঙ্গে একই আসনে নিয়ে আসে ভারতকেও৷

- Advertisement -

আরও পড়ুন: পশ্চিমবঙ্গের আকাশ থেকে চারটি পাক ফাইটার তাড়িয়ে ছিলেন এই বায়ুসেনা পাইলট

এয়ারক্র্যাফ্ট ক্যারিয়ারের নির্মাণকার্য সম্পূর্ণ হলে এটি, 12 MiG-29Ks, ৮টি তেজস লাইট কমব্যাট এয়ারক্র্যাফ্ট এবং ১০ হেলিকপ্টার রাখতে সক্ষম হবে৷ ২০০৩ সালে এর নির্মাণের জন্য প্রথম অনুমোদন দেওয়া হয়৷ নির্মাণে বরাদ্দ খরচ হিসেবে ধার্য হয় ২০,০০০কোটি টাকা৷ কিন্তু বিভিন্ন কারণে তার নির্মাণকার্যে দেরি হতে থাকে বলে জানা যায়৷ Comptroller and Auditor General বা CAG-এর আগে জানিয়েছিল, নির্মাণকার্য ২০২৩সালের মধ্যেই সম্পূর্ণ করতে হবে৷

আরও পড়ুন: আকাশ থেকে গোপনে চিনের উপর নজরদারি চালাতে ড্রোন কিনছে ভারত

উল্লেখ্য, চলতি বছরে চিন তার নিজস্ব এয়ারক্র্যাফ্ট ক্যারিয়ার লঞ্চ করে এবং ২০২০সালের মধ্যে এটি যে সক্রিয় হয়ে উঠবে এমনটাও মনে করা হচ্ছে৷ এদিকে, বিভিন্ন প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের মতে, ভারতীয় নৌবাহিনীর সাবমেরিনের ক্ষেত্রেও পিছিয়ে রয়েছে৷ এর ১৩টির মধ্যে ১১টি সাবমেরিনই ২৫ বছরেরও বেশি পুরনো৷ চিনের কাছে বর্তমানে প্রায় ৭০টিরও বেশি সাবমেরিন রয়েছে৷

Advertisement
-----