ভিন ধর্মে প্রেম, মেয়েকে খুন করল বাবা, দাদা

স্টাফ রিপোর্টার, বর্ধমান: অনার কিলিং-এর ছায়া এবার এরাজ্যেও৷ ভিন ধর্মের ছেলের সঙ্গে মেয়ের সম্পর্কের কথা জানতে পেরেছিলেন কলকাতার লরি ব্যবসায়ী৷ শত চেষ্টাতেও মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক ভাঙতে পারেননি তিনি৷ সমাজে সম্মানহানির ভয়ে নিজের মেয়েকেই নৃশংসবাবে খুন করলেন বাবা৷ এই খুনে বাবাকে সাহায্য করেছিল মৃতার দাদা৷ শেষ পর্যন্ত জামালপুর পুলিশের তদন্তে উঠে আসে বিষ্ফোরক তথ্য৷ গ্রেফতার করা হয় মহম্মদ মুস্তাফা ও তার ছেলে মহম্মদ জাহিদকে৷

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ভিন্ন ধর্মে ছেলের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে নাজিয়া (নাম পরিবর্তিত)৷ মেনে নিতে পারেননি তার বাবা মহম্মদ মুস্তাফা৷ গত ৩১শে আগষ্ট সকালে জামালপুর থানার নবগ্রামের ময়না এলাকায় ২নম্বর জাতীয় সড়কের ধার থেকে এক অজ্ঞাত পরিচয় যুবতীর মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। ময়না তদন্তে দেখা যায় মৃতের দুই উরুতে মেহেন্দী দিয়ে চারটি ফোন নম্বার এবং এক যুবকের নাম লেখা রয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘হিন্দুদের পিছন থেকে ছুরি মারছে বিজেপি’

- Advertisement -

সেই ফোন নম্বরের সূত্র ধরেই তদন্ত শুরু করে পুলিশ৷ তারা পৌঁছে যায় মহারাষ্ট্রে জরীর কারিগর ওই যুবকের কাছে৷ তাকে জিজ্যাসাবাদে জানা যায়, বিহারের মুজাফরপুর জেলার চকআলহাদাদ এলাকার বাসিন্দা বছর ২৫শের যুবতীত সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল৷ এরপরই তদন্তে উঠে আসে রোমহর্ষক কাহিনী৷

পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে উঠে এসেছে, নাজিয়ার প্রেমের সম্পর্ক ভাঙতে চেষ্টার কসুর করেনি বাবা মহম্মদ মুস্তাফা৷ কেড়ে নেওয়া হয় মোবাইল৷ মাসির বাড়িতে শিকল দিয়ে বেঁধেও রাখা হয়েছিল কিছুদিন৷ কিন্তু তাতেও কাজহয়নি৷ এরা আদতে বিহারের বাসিন্দা হলেও লরির ব্যবসায়ী হওয়ায় বর্তমানে থাকেন কলকাতায়৷ গত ২৯শে আগষ্ট নাজিয়াকে মুজাফরপুর থেকে কলকাতায় নিয়ে আসে তার বাবা ও দাদা মহম্মদ জাহিদ৷

আরও পড়ুন: রাম মন্দির ইস্যুতে দ্বিচারিতা করছে বিজেপি: প্রবীণ তোগাড়িয়া

এরপর ৩০ আগষ্ট রাতে নাজিয়াকে নিয়ে তার বাবা ও দাদা বেড়িয়ে পড়েন। কলকাতা থেকে জাতীয় সড়ক দিয়ে বর্ধমানের দিকে যাওয়ার পথে নবগ্রামের কাছে পিছন থেকে নাইলনের দড়ি দিয়ে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয় নাজিয়াকে। মৃত্যু নিশ্চিত করতে মেয়ের মাথায় ও শরীরের নানান জায়গায় ভারী বস্তু দিয়ে আঘাত করা হয়। পরে ২নম্বর জাতীয় সড়কের ধারে মৃতদেহ ফেলে দেওয়া হয়৷

কিন্তু মৃতদেহের শরীরে লেখা যুবকের ফোন নম্বরেই নাজিয়ার মৃত্যু রহস্যের উন্মোচন হয়ে গেল৷ মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করা হয় মহম্মদ মুস্তাফা ও মহম্মদ জাহিদকে৷ মঙ্গলবার তাদের বর্ধমান আদালতে পেশ করা হলে বিচারক তাদের জেল হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Advertisement ---
---
-----