অভিনেতা হিসেবে ইদানীং বেশ চর্চায় রয়েছেন। ‘এইটটি নাইন’ থেকে শুরু করে ‘বেশ করেছি প্রেম করেছি’র মতো ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন সতফ ফিগর। ইতিমধ্যেই মুক্তি সতফ অভিনীত বাংলা ছবি ‘চোরাবালি’৷ ছবির কথা বলার পর একটু তরতাজা মেজাজে ঠাণ্ডা মরশুমের গুণগান করলেন এই অভিনেতা। কলকাতা 24*7-এর প্রতিনিধি রাকেশ নস্করকে ঠাণ্ডার খাওয়া দাওয়া থেকে ঘুরে বেড়ানোর ফান্ডা অকপটে শেয়ার করলেন সতফ।

প্রশ্ন – শীতের মরশুম কতটা উপভোগ কর?
সতফ ফিগর- অফকোর্স.. ‘আই লাভ উইন্টার’। আমি গরম একদম পছন্দ করি না। শীতের সঙ্গে অনেক কিছুই আসে। শীতের একটা আলাদা উন্মাদনা রয়েছে। আবার আলস্য বা ল্যাদ খাওয়ার ব্যাপার থাকে। বিশেষ করে সকালবেলা।  তার সঙ্গে ‘ওল্ড মঙ্ক’ চলে। একটা ফিলোসফিকাল ব্যাপারও আছে আমার জন্যে ঠিক যেমন শীতের পরেই বসন্ত আসে। 
ShatafFigar-18643.png

Advertisement

প্রশ্ন – অনুভূতি তো হল…খাবার বিষয় কতটা আগ্রহী?
সতফ ফিগর- আমি খুব খাই। এই সময় খিদেটা বেড়ে যায়। প্রচুর খাওয়া হয়। তারপর ওয়ার্কআউট তো চলতেই থাকে। নিহারি…হালিম…বিরিয়ানি…আর অফকোর্স নলেন গুড়ের সন্দেশ, আইসক্রিম খাবার জন্য পাগল হয়ে যাই।

প্রশ্ন– এখন কি ট্রেণ্ড চেঞ্জ হয়েছে…এই প্রজন্ম কি এসব ছেড়ে কেক পেস্ট্রিতে মন দিয়েছে?
সতফ ফিগর- এখনও এরকম লোকজন আছেন, যারা নলেন গুড়ের জন্য দুর-দূরান্তে চলে যান। আমি যখন মুম্বইতে থাকতাম। গত বছর..শীতে একটা বাঙালির মিষ্টির দোকান খুঁজে বের করেছিলাম। তারপর চুটিয়ে খেয়েছি।

প্রশ্ন –  বইমেলা কতটা দরকারি তোমার কাছে?
সতফ ফিগর- বুক ফেয়ার মানুষকে শিক্ষিত করে। খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যেভাবে আমাদের কলকাতা বুক ফেয়ারটা হয় আমি প্রত্যেক বারই যাই। 

প্রশ্ন- এই সময় বেড়ানোর কি প্ল্যান থাকে?
সতফ ফিগর- কিছুই প্ল্যান থাকে না। শ্যুটিং স্পটই ঘোরার জায়গা। কিছুদিন আগে ব্যাঙ্গালুরু ঘুরে এলাম। শ্যুট করে এলাম।  তিন চার দিন আরও এক্সটেন্ড শ্যুট করে এলাম। ইউনিটটা ফিরে এলো…কিন্তু আমার কাছে টাইম ছিল তো চার দিন ব্যাক প্যাক ট্রিপ করে এলাম।

প্রতিনিধি – রাকেশ নস্কর

----
--