নয়াদিল্লি: এবার স্বস্তি, বিদেশে যেতে পারবেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীর ছেলে কার্তি চিদাম্বরম৷ সোমবার সুপ্রিম কোর্ট এই নির্দেশ দিয়েছে৷ জুলাই মাসের ২৩ থেকে ৩১ শে জুলাই পর্যন্ত নিজের ব্যবসার কাজে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও ব্রিটেন যেতে পারবেন বলে জানিয়েছে শীর্ষ আদালত৷

আগামী ৭ অগাস্ট পর্যন্ত চিদাম্বরমের অন্তর্বর্তী জামিন মঞ্জুর হয়েছে। এদিন সকালেই নতুন করে অন্তর্বর্তী জামিনের আবেদন দায়ের করেন কার্তি৷ সেই আবেদনের প্রেক্ষিতেই এই নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট৷ আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় সুপ্রিম কোর্ট এই বিদেশ সফরের অনুমতি দিল৷ এর আগে, তাঁর বিদেশ সফরে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল আদালত৷

অন্যদিকে, স্বস্তির খবর পি চিদাম্বরমের জন্যও৷ এয়ারসেল–ম্যাক্সিস আর্থিক দুর্নীতি মামলায় পাতিয়ালা হাউস কোর্ট তাঁর অন্তর্বর্তী জামিন মঞ্জুর করে৷ গত ১০ তারিখ তাঁর দায়ের করা আগের অন্তর্বর্তী জামিনের আবেদনের বিরোধিতা করে এবং মামলার পূর্ণাঙ্গ বিবরণ দিয়ে আদালতে জমা দিয়েছিল ইডি। আবার সিবিআইয়ের পেশ করা নতুন চার্জশিটে এয়ারসেল-অ্যাক্সিস মামলায় নাম ওঠে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরমের৷ নাম ছিল চিদাম্বরমের ছেলে কার্তি চিদাম্বরমের৷

গত ১৯ তারিখ পেশ করা চার্জশিটে মোট ১৮ জনের নাম উল্লেখ করা হয়৷ দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্টে এই চার্জশিট জমা পড়ে৷ কার্তি চিদাম্বরম এই মামলায় ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত৷ তাঁকে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি গ্রেফতারও করা হয়। পরে তিনি জামিন পান। বিশেষ সিবিআই বিচারক ও পি সৈনির সামনে চার্জশিট ফাইল করে সিবিআই৷ নতুন চার্জশিটে সিবিআই জানায়, ফরেন ইনভেস্টমেন্ট প্রোমোশন বোর্ডের ক্ষেত্রে দুটি পৃথক আর্থিক দুর্নীতি সংক্রান্ত প্রমাণ মিলেছে৷

আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় চিদাম্বরমের ছেলে কার্তি চিদাম্বরমের জামিনও মঞ্জুর করে দিল্লি হাই কোর্ট৷ সেই জামিনকেই চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ২৫ জুন সুপ্রিম কোর্টে ফের মামলা করে সিবিআই৷ তিন মাস আগে আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় জামিন পান পি চিদাম্বরমের ছেলে৷ বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি সিবিআই৷ জামিন মঞ্জুরকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয় সিবিআই৷

ইউপিএ ১ সরকারের আমলে চিদম্বরম অর্থমন্ত্রী থাকার সময়ই ৩,৫০০ কোটি টাকার এয়ারসেল-ম্যাক্সিস ও ৩০৫ কোটি টাকার আইএনএক্স মিডিয়া দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। ফরেন ইনভেস্টমেন্ট প্রোমোশন বোর্ড এই চুক্তি অনুমোদন করেছিল। এ বিষয়ে চিদম্বরম ও কার্তির ভূমিকা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা।

----
--