মস্কো: বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছে ইরান৷ মরক্কোকে হারালেও স্পেনের কাছে হারতে হয়েছে আজমুনদের৷ বি-গ্রুপের শেষ ম্যাচে পর্তুগালের সঙ্গে ১-১ ড্র করলেও বিশ্বকাপের নক-আউটে পর্বে যেতে পারেনি ইরান৷ এরপরই সমর্থকদের ক্ষোভের মুখে পড়েন দলের তারকা স্ট্রাইকার সরদার আজমুন৷

বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচে ইরান মোট দুটি গোল করে৷ মরক্কোর বিরুদ্ধে অতিরিক্ত সময়ে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন ইরানের আজিজ বোউহাদুজ৷ গ্রুপের শেষ ম্যাচে অতিরিক্ত সময়ে পর্তুগালের জালে বল জড়িয়ে ম্যাচ ড্র করেন ইরানি ফরোয়ার্ড করিম আনসারিফাদ৷ তিন ম্যাচেই গোলমুখ খুলতে পারনেনি দলের বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে ইরানের সর্বোচ্চ গোল স্কোরার৷

Advertisement

গ্রুপ পর্যায় থেকে বাদ পড়লেও মাথা উঁচু করেই বিশ্বকাপ সফর শেষ করেছে ইরান৷ গ্রুপের তিনটি দলের বিরুদ্ধে সম্মানের সঙ্গে লড়াই করেছে আজমুনরা৷ কিন্তু এরপরও বিশ্বকাপের শেষ ষোলোয় পৌঁছতে না-পারার জন্য ইরান সমর্থকদের সমালোচনা এবং অপমানের মুখে পড়েন ইরানের ফুটবলাররা৷ ছেলের বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্য শুনে শারীরিক অবস্থার অবনতি হয় আজমাউনের মায়ের৷ এরপরই ইরানের জাতীয় ফুটবল দল থেকে অবসর নেওয়ার কথা ঘোষণা করেন ইরানি স্ট্রাইকার৷

পুরো বিষয়টিতে কষ্ট পাওয়া আজমুন জানান, ‘ম্যাচ হারার পর আমাদের টার্গেট করে প্রচুর কথা বলা হয়েছে৷ আমার মা অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন৷এ মন একটা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় ফুটবল কিংবা মা-এর মধ্যে একটা বাছতে হত৷ আমি মায়ের সঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নিলাম৷’

এরপর আবেগতাড়িত আজমুন জানান, ‘ দেশের হয়ে খেলাটা বিশাল সম্মানের৷ যে কটা দিন আমি দেশের হয়ে খেলতে পেরেছি তার জন্য গর্বিত৷ এখানটাই পৌঁছতে আমাকে প্রচুর পরিশ্রম করতে হয়েছে৷ দুর্ভাগ্যবশত ২৩ বছরেই আমাকে ফুটবল কেরিয়ারকে ইতি টানতে হচ্ছে৷’

----
--