তেহরান: ইরানে যেন বৃষ্টি না হয়, সেজন্য ইজরায়েল ‘আবহাওয়া বদলে দিচ্ছে’ এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন এক ইরানি জেনারেল। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল গোলাম রেজা জালালি বলেছেন, তার দেশ ‘মেঘ ও বরফ’ চুরির শিকার হচ্ছে।

“ইরানের পরিবর্তিত জলবায়ু বেশ সন্দেহজনক। এই জলবায়ু পরিবর্তনের পেছনে বিদেশি হস্তক্ষেপের বিষয়েও সন্দেহ করা হচ্ছে,” ইরানের করা এক বৈজ্ঞানিক গবেষণার ভিত্তিতেই এমন অভিযোগ তিনি করছেন বলে দাবি করেছেন জালালি৷

Advertisement

ইরানের স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে ইরানের আবহাওয়ার গতিপ্রকৃতি ক্রমশ বদলাচ্ছে৷ যা স্বাভাবিক নয়৷ জালালির দাবি, ইরানের আকাশে প্রবেশকারী মেঘ থেকে যেন বৃষ্টি না হয় তা নিশ্চিত করার জন্য ইজরায়েল ও আরেকটি দেশ যৌথভাবে কাজ করছে। ইরানের মেঘ ও বরফ চুরি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

তবে ইরানের আবহাওয়া দফতর জালালির এই বক্তব্য সমর্থন করেনি৷ আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী, কোনও দেশের পক্ষে বরফ ও মেঘ চুরি করা সম্ভব নয়। ফ্রান্সের সংবাদ সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য মিলেছে৷

প্রাক্তন ইরানি প্রেসিডেন্ট মেহমুদ আহমেদিনেজাদ ২০১১ সালে অভিযোগ করেছিলেন, পশ্চিমা দেশগুলো ইরানে ‘খরা সৃষ্টি’র জন্য বিশেষ পরিকল্পনা করছে৷ ইউরোপীয় দেশগুলো জোর করে তাদের মহাদেশে বৃষ্টি ঝরাতে বিশেষ যন্ত্র ব্যবহার করে। এই বক্তব্যের সাত বছর পর আবারও বিদেশি শক্তির বিরুদ্ধে মেঘ চুরির অভিযোগ তুললেন ইরানি জেনারেল৷

জালালি দাবি করেন, ‘বিদেশি হস্তক্ষেপ জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। ভাসতে ভাসতে ইরানের আকাশসীমায় জড়ো হওয়া মেঘগুলো যেন বৃষ্টি ঝরাতে সক্ষম না হয়, তা নিশ্চিত করতে একযোগে কাজ করছে ইজরায়েল ও অন্য একটি দেশ। তার চেয়েও বড় কথা হলো আমরা মেঘ ও বরফ চুরির শিকার হচ্ছি।’

নিজের বক্তব্যের স্বপক্ষে জালালি বলেন তাঁর কাছে নাকি আফগানিস্তান থেকে ভূমধ্যসাগর পর্যন্ত পাহাড়ি এলাকার দু হাজার ২০০ মিটার ওপর পর্যন্ত চালানো এক সমীক্ষা রয়েছে৷ ওই সমীক্ষায় ইরানি ভূখণ্ড বাদে বাকি এলাকাগুলো বরফ ঢাকা বলে দেখা গেছে৷

----
--