বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় তৎপর সেচ দফতর

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বর্ষা নি:শ্বাস ফেলছে ঘাড়ের কাছে৷ বন্যা পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে রাজ্যে৷ সেই অবস্থার মোকাবিলায় বুধবার জলসম্পদ ভবনে বৈঠক করেন রাজ্যের সেচমন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র৷

সেখানে হাজির ছিলেন কলকাতা পুরসভা, বিধাননগর পুরসভা, হাওড়া পুরসভার আধিকারিকরা৷ এছাড়া উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার এডিএম, উত্তর ২৪ পরগণা, হুগলি, হাওড়ার জেলাশাসক ও জেলা সভাপতিরা৷ এছাড়া অন্যান্য কিছু জেলার কর্মাধক্ষ্যরা৷ উপস্থিত ছিলেন সেচ দফতরের চিফ ইঞ্জিনিয়ার, অ্যাডিশনাল চিফ সেক্রেটারি ও অন্যান্য আধিকারিকরা৷ উপস্থিত ছিলেন কমিশনার স্তরের পুরসভার প্রতিনিধিরা৷

আগাম বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় কী কী তৎপরতা ও কর্মসূচি গ্রহণ করা যায়, সেগুলোই মূলত আলোচনা হয় বৈঠকে৷ বৈঠকে বলা হয় নজর রাখা হবে প্রাক বর্ষা মরসুমের দিকে৷ এই মরসুমে কোন জেলায় কি পরিস্থিতি থাকে, তার দিকে নজর রাখা হবে৷

- Advertisement -

সেই অনুযায়ী পরিস্থিতির মোকাবিলা করবে রাজ্য সরকার৷ সাধারণ মানুষের যাতে কোনও ক্ষতি না হয়, সেদিকে নজর রাখার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বৈঠকে৷ তৈরি করা হবে রেসকিউ সেন্টার বা আশ্রয় শিবির৷

যেসব বাঁধের অবস্থা ভালো নয়, সেই সব বাঁধগুলির মেরামতি করে তোলা হবে বর্ষা শুরুর আগেই বলে স্থির হয় বৈঠকে৷ বৈঠকে বলা হয় সব দিক থেকে রাজ্য সরকার বন্যা মোকাবিলায় প্রস্তুত৷ কলকাতা, বিধাননগর, রাজারহাট এলাকায় বর্ষায় যেখানে জল জমে, তার জন্যও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে৷
ওই এলাকা ঘিরে থাকা ৩৬২ কিমি খাল পরিস্কার করা হয়েছে৷ যাতে ওই খাল দিয়ে বর্ষার জমা জল বেরিয়ে যেতে পারে, তার জন্য এই খাল পরিস্কার করা হয়েছে৷

বৈঠকের পর জানানো হয়, পাম্পিং স্টেশনগুলিকে আরও বেশি বুস্টআপ করা হয়েছে৷ কর্মক্ষমতা দ্বিগুণ করা হয়েছে পাম্প গুলির৷ লোকাল পাম্পিং স্টেশনগুলিকে অস্থায়ীভাবে তৈরি রাখা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে৷

Advertisement
---