শরীরকে জোর করে কিছু করাবেন না একদম!

আমরা বারবার আপনাকে ফিট থাকার জন্য নিয়মিত ব্যায়াম বা এক্সারসাইজ করার পরামর্শ দিই। কিন্তু কিছু কিছু সময় এই নিয়মিত ব্যায়াম করার থেকে নিজেকে বিরত হতে হয় আপনার ভালোর জন্যই। শরীরের ওপর কখনই চাপ বা জোর করে এমন কিছু ব্যায়াম করবেন না৷ তা না হলে দেখা যায়,  ফিট তো দূরের কথা,  সঙ্গী হয় নানা ধরণের সমস্যা।

এক্সারসাইজ বয়সের সঙ্গে নানা সমস্যাকেই রোধ করতে পারে। তবে কোনও সাময়িক শারীরিক সমস্যা নিয়ে এক্সারসাইজ করা একদমই ঠিক নয়। এতে হিতে বিপরীত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে খুব বেশি।

এই বিষয়ে এনআইটি ও আর-এর ডাক্তার ম.ও জাহাঙ্গীর আলম বলেন, শরীরে কোনো রোগ থাকলে সেটি নিয়ে ব্যায়াম করা একেবারেই উচিত নয়। তাহলে রোগ আরও বৃদ্ধি পায়। তাছাড়া কোনো জয়েন্টে ব্যথা থাকলেও সেই সময় ব্যায়াম থেকে বিরত থাকবেন। জয়েন্টে কোনো রকম ইনফেকশন থাকলেও করা যাবে না। এতে আরও ক্ষতি হতে পারে। এই সময় ব্যায়াম বন্ধ রাখাই ভালো।
কোন কোন সময় ব্যায়াম করবেন না একেবারেই জেনে নিন৷

কোমরে ব্যথা থাকলে
কোমরে অনেক কারণেই ব্যথা হতে পারে। যেমন  দীর্ঘ সময় ধরে নরম বিছানায় ঘুমলে,  এমনকি বেখেয়ালে হঠাৎ নিচু হলেও ব্যথা বা সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ সময় কোনও রকম ব্যায়াম না করাই ভালো। সঙ্গে সঙ্গে লক্ষ্য রাখবেন,  কোমর ঝুঁকিয়ে কাজ কম করতে। আবার অনেক সময় ভুল ব্যায়াম করার ফলে কোমরের হাড়ও সরে যেতে পারে। তাই সাবধান থাকুন৷

ঘাড়ে ব্যথা হলে
এই সময় যে ব্যায়াম করলে ঘাড়ে চাপ পড়ে,  সেগুলো করা যাবে না। শরীরের উপরের অংশের ব্যায়াম করার সময় একটু খেয়াল রাখবেন। অভিজ্ঞ ট্রেনার অথবা ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যায়াম করা ভালো।

সার্জারির পর
সার্জারির পর ব্যায়াম শুরু করার জন্য অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন। কারণ সব সার্জারির পরই একটি নির্দিষ্ট সময় থাকে। তারপরও দেখা যায়, ব্যায়াম করলে সমস্যা হতে পারে। বিশেষ করে সিজারিয়ান ডেলিভারির পর একটু সতর্ক থাকতে হয়। তাই ব্যায়াম তো করবেনই,  তবে কোনও রকম ব্যথা বা অসুবিধা নিয়ে নয়। এমন কিছু হলে রেস্টে থাকুন কিছুদিন। তাহলে দ্রুতই আবার শুরু করতে পারবেন আপনার শরীরচর্চা।

Advertisement
---
-----