জ্বর গায়ে মাঠে নেমেছিলেন রাকিটিচ

মস্কো: শরীর সম্পূর্ণ সুস্থ ছিল না৷ কিন্তু বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল মিস করতে চাননি ইভান রাকিটিচ৷ ক্রোটদের মাঝ মাঠের এই গুরুত্বপূর্ণ প্লেয়ার জ্বর নিয়েই লুজনিকি স্টেডিয়ামে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে খেলতে নেমেছিলেন৷ ফাইনালে যদি অসুস্থ হয়ে পড়েন তখন কী হবে? আত্মবিশ্বাসী ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার সরাসরি জানান, জ্বর কেন একটা পা বাদ গেলেও আমি ফাইনাল খেলব৷

ব্রিটিশদের হারিয়ে সেমিফাইনালে ওঠার পর ক্রোয়েশিয়ান মিডফিল্ডার জানান, ‘ গত মঙ্গলবার রাতে আমার জ্বর ছিল৷ ১০২ ডিগ্রির উপরেও উঠে যায় তাপমাত্র৷ মাঠে নামার উপযুক্ত থাকার জন্য আমি বিছানায় শুয়ে ছিলাম৷ যেটা খুব কাজে দিয়েছে৷’

বড় তারকা ছাড়াই সব ম্যাচে জিতে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পৌঁছেছে ক্রোটরা৷ স্বাভাবিকভাবেই বিশ্বকাপের ফাইনাল মিস করতে চাইছেন না রাকিটিচ৷ স্পষ্ট জানালেন,‘ প্রয়োজন হলে একটা পা-ছাড়াও ফাইনাল খেলতে নামব৷ কোনওভাবে মিস করতে চাই না৷’

- Advertisement -

বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ম্যাচের আগে ইংল্যান্ড দলকে নিয়ে উত্তাল ছিল সোশ্যাল মিডিয়া৷ কেনদের সামনে অনেকেই ধর্তব্যের মধ্যে আনছিলেন না ক্রোটদের৷ এই জিনিসগুলোই ম্যাচটা জেতার ব্যাপারে বাড়তি শক্তি জুগিয়েছে বলে জানান রাকিতিচ, ‘সোশ্যাল মিডিয়াতে এমনভাবে প্রচার করা হচ্ছিল যেন ইংল্যান্ড মাঠে নামার আগেই জিতে গিয়েছে৷ ওরা এখন ওটাই করে যাক সোশ্যাল মিডিয়াতে৷ রবিবারের ফাইনালটা আমরাই খেলছি৷’

বুধবার অতিরিক্ত সময়ে মান্দজুকিচের গোলে ইতিহাস গড়ে ক্রোয়েশিয়া৷ শুরুতেই গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়া সত্ত্বেও ইংল্যান্ডকে ২-১ গোলে হারিয়ে প্রথমবার বিশ্বকাপ ফাইনালে ক্রোটরা৷ ৫ মিনিটের মাথায় ফ্রি-কিক থেকে গোল করে ইংল্যান্ডকে এগিয়ে ১-০ দেন ট্রিপিয়ার৷ ৬৮ মিনিটে পেরিসিচের দুরন্ত গোলে ম্যাচে ১-১ সমতা ফেরায় ব়াকিটিচরা৷ নির্ধারিত ৯০ মিনিটে ফলাফল অমীমাংসিত থাকায় ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে৷ ১০৯ মিনিটে মান্দুকিচের ঐতিহাসিক গোলে ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করে ক্রোয়েশিয়া৷

Advertisement ---
---
-----