মুম্বই: ‘মেরি ইয়ার কি সাদি’ ছবিতে একটা গান তৈরি করেছিলেন৷ তারপর দীর্ঘ দশ বছরের বিরতি৷ আবার তাঁকে বলিউডের সুরের দুনিয়ায় ফিরিয়ে আনলেন মুকেশ ভাট৷ ‘আশিকি-২’-এ তাঁর সুরে ফের ভাসল বলিউড৷ আর তাই মুকেশকেই তাঁর বলিউডের ‘গডফাদার’ হিসেবে স্বীকৃতি দিলেন সঙ্গীত পরিচালক জিৎ গঙ্গোপাধ্যায়৷

‘আশিকি-২’তে বলিউডে তাঁর একরকম পুর্নজন্ম হয়েছে বলা যায়৷ কিন্তু তার আগে ১০ বছর কেউ কাজের জন্য ডাকেনি৷ ইতিমধ্যে টলিউডে ছবির গানের ভুবনে নতুন জোয়ার এনেছেন৷ বাংলা ছবির পুনরুত্থানের নেপথ্যে তাঁর সুরের ভূমিকাও অনেকখানি৷ তবে বলিপাড়ায় কাজের জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছে অনেকগুলো দিন৷ অবশ্য সুযোগ পেয়ে কোনও ভুলচুক করেননি৷ নিজস্ব ঘরানার গানে ভরিয়ে দিয়েছেন বলিউডকে৷ আর তারপর থেকেই পরপর কাজ৷ সম্প্রতি ‘খামোশিয়া’ ছবির জন্য অঙ্কিত তেওয়ারির সঙ্গে একসঙ্গে গান কম্পোজ করেছেন তিনি৷ বলিউডে এই নতুন করে ফিরে আসার সবটুকু ক্রেডিট জিৎ তুলে রেখেছেন মুকেশজির জন্যই৷

বলিউডে দাপিয়ে কাজ করে যাওয়া বাঙালি সঙ্গীত পরিচালকের সংখ্যা কম নয়৷ সেই হেমন্তকুমার থেকে শুরু করে সলিল চৌধুরী হয়ে রাহুলদেব বর্মন, শান্তনু মৈত্র সকলেই প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন বলিউডে৷ সেই তালিকায় নিজের নামও যোগ করতে পেরেছেন জিৎ গঙ্গোপাধ্যায়৷ ছোটবেলায় সুরের ইনস্পিরেশনের কথা জানাতে গিয়ে এইসব নামই ঘুরেফিরে এসেছে জিতের মুখে৷ সলিল চৌধুরী, আর ডি বর্মন, মদন মোহনসাবের সুরেই ভরে ছিল তাঁর ছোটবেলার সুরের জগৎ৷ গীটারে এঁদের সুরই বাজাতেন তিনি৷ আর সেখান থেকেই খুঁজে পেতেন তাঁর ইনস্পিরেশন৷

বলিউডে এখন চূড়ান্ত ব্যস্ত জিৎ গঙ্গোপাধ্যায়৷ এই মুহূর্তে ‘ফির সে’, ‘মিঃ এক্স’, ‘হামরি অধুরি কাহানি ছবির জন্য গান তৈরি করছেন তিনি৷

--
----
--