হিন্দু মুসলিম ঐক্যের মসিহা ছিলেন জিন্না: নেতাজীর প্রপৌত্র

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগে আটঘাট বেঁধে মাঠে নামতে চলেছে বিজেপি। ঠিক তখনই নানা বিতর্কিত মন্তব্যে বিজেপির অস্বস্তি বাড়ালেন বিজেপির রাজ্য সহ-সভাপতি চন্দ্রকুমার বসু।

বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ের বিরোধিতা করে কয়েকদিন আগে একটি ফেসবুক পোস্ট করেন নেতাজীর প্রপৌত্র। এবার সেখানেই রাজকুমার দাশগুপ্ত নামের এক ব্যক্তির প্রশ্নের উত্তরে চন্দ্রকুমার বসু লেখেন, “জিন্নাহ হিন্দু-মুসলিম ঐক্যের একজন মসিহা ছিলেন ১৯৪০ অবধি। যখন তিনি বুঝতে পারেন স্বাধীন ভারতে মুসলিম লিগ ক্ষমতার ভাগ পাবেন না, তখন তিনি লাহোর কংগ্রেসে পাকিস্তান প্রস্তাব তোলেন। ওই সময় কংগ্রেস মুসলিমদের কোণঠাসা করে দিয়েছিল।”

এখানেই থেমে না থেকে নিজেদের একমাত্র হিন্দুত্ববাদী পার্টি দাবি করে আসা বিজেপিকে বিপাকে ফেলে নেতাজীর প্রপৌত্র লেখেন, “ওই সময় কংগ্রেস আসলে একটি হিন্দু পার্টি ছিল। সর্ববর্ণের মানুষের প্রতিনিধিত্ব করত না কংগ্রেস।”

- Advertisement -

কয়েকদিন আগে বিজেপির রাজ্যসভার সদস্য রূপা গাঙ্গুলি NRC প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের বলেন, “দেশভাগের সময় ঠিক হয়েছিল পাকিস্তান মুসলিম রাষ্ট্র হবে। বাংলাদেশও মূলত মুসলমানদের জন্যই স্থির হয়। কিন্তু বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দুরা ভারতের একটি অঙ্গরাজ্য পশ্চিমবঙ্গে জায়গা পাবে।”

এর বিরোধিতা করে বিজেপির রাজ্য সহসভাপতি ফেসবুকে লেখেন, “মাননীয়া সাংসদকে সম্মান জানিয়েই বলছি ভারতের মুসলমানরা ভারতের জন্য এবং ভারতের একতার জন্য লড়াই করেছেন। আজাদহিন্দ ফৌজেও মুসলিমরা দেশের জন্য লড়াই করেছেন। কিছু সাম্প্রদায়িক নেতার জন্য দেশভাগ হয়েছে। ভারত সবসময় ভারতীয়দের জন্য।”

এর আগে NRC প্রসঙ্গে কলকাতা২৪x৭-কে চন্দ্র বোস বলেছিলেন, “দেখুন শ্যামাপ্রসাদ যা চেয়েছিলেন সেই হিসেবে দেশভাগ হয়নি। না বাংলা ভাগ হয়েছে। ভারত কিংবা বাংলা কোনভাবেই হিন্দুদের একার বাসভূমি হতে পারে না। ভারত সবসময় ভারতীয়দের। হিন্দুরাষ্ট্রের স্বপ্ন অমূলক। কে কী বলল তাতে কিছু যায় আসে না। আমি নরেন্দ্র মোদীকে দেখে বিজেপিতে এসেছি। উনি বলেন সবকা সাথ সবকা বিকাশ।”

Advertisement
---