কলকাতা: গল্ডব্লাডার অপারেশন সাকসেসফুল। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন যিশু সেনগুপ্ত। অনুরাগীদের আশ্বস্থ করে নায়ক বলেন, ” তিনি এখন সুস্থ আছেন। যদিও একটা দুর্বলতা তো রয়েছে। তবে সেটা খুব বেশিদিন থাকবে না।”

আপাতত ফুল রেস্টে থাকবেন অভিনেতা। ডাক্তারের নির্দেশ ১৫ দিন কোনও কাজ নয়। বাইরের খাবার এক্কেবারে বন্ধ। আপাতত শুধু ঘরের তৈরি খাবার। তাও আবার সঠিক সময়ে অল্প অল্প করে।

Advertisement

দিন কতক আগে, এক বিলেকে মারাত্মক পেট ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন যীশু। ডাক্তারের তরফ থেকে জানানো হয়, গল্ডব্লাডারের জন্যই এই পেট ব্যথা। একটা ছোট অপারেশন করতে হবে। তবে যদি ওষুধে কাজ করে, তাহলে আর অপারেশন করতে হবে না! কিন্তু শেষমেশ অস্ত্রোপচার করতেই হয় অভিনেতার।

গোটা বছরটাই টাইট শিডিউলের মধ্যে রয়েছেন নায়ক। বিগত কয়েক মাস ধরে যেন দম ফেলার সময় নেই হিরোর। একদিকে মেয়ের সঙ্গে তাঁর প্রথম ছবি ‘উমা’র প্রচারে। অন্যদিকে ‘এক যে ছিল রাজা’র পোস্ট প্রোডাকশনের কাজ। আবার সামনে সৃজিতের চৈতন্য সব মিলিয়ে নিজের খেয়ার করার সময় পাচ্ছিলেন না যিশু। আর তাতেই এই বিপত্তি।

আরও পড়ুন: সুরেলা স্মৃতিতে ভরপুর পঞ্চমদার ৭৯ তম জন্মবার্ষিকী

প্রসঙ্গত, কিছু দিন আগে মুক্তি পেয়ে সৃজিতের সিনেমা ‘উমা’। যেখানে বাবা-মেয়ের জুটি মনে ধরেছে সিনেপ্রেমীদের। শুধু কলকাতা নয়! ভারত সহ ভারতের বাইরে প্রশংসিত ‘উমা’। লাগামছাড়া ভিড় টিকিট কাউন্টারের বাইরে। প্রথমদিন থেকে ঝুলছে ‘হাউজফুল’-এর বোর্ড। একবার নয়! বারবার এই সিনেমা দেখতে আসছেন দর্শকরা।

এদিকে যিশুর সঙ্গে আরও একবার জুটি বেঁধে ফেলেছেন সৃজিত। প্রতিবার নব নব রূপে পরিচালকের ক্যামেরায় ধরা পড়ছেন যীশু সেনগুপ্ত। এবারের অবতার চৈতন্য। সিনেমার নাম ‘গৌরঙ্গ ইতিকথা’। নেপথ্যে প্রযোজক রানা সরকার।

ছোটপর্দায় মতো বড়পর্দাতেও রানার হাত ধরে যিশু আসছেন চৈতন্য রূপে। তবে ‘গৌরাঙ্গ ইতিকথা’ চৈতন্য দেবের জীবন চিত্র নয়। এই ছবিতে মূলত চৈতন্যর মধ্যবয়সটাই দেখানো হবে। যে পর্বে থাকবে চৈতন্যর সামাজিক-রাজনৈতিক চিন্তাধারা থেকে শুরু করে তাঁর মৃত্যু নিয়ে রহস্য। পিরিয়ড পিসটি লিখছেন শিবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায়। এই প্রথম সৃজিত অন্যকারও লেখায় পরিচালনা করবে। পরিচালক বলেন, “চৈতন্যের সামাজিক আর ভক্তিমূলক দিক ছাড়া বাকি কিছু নিয়ে বিশেষ ধারণা ছিল না। রানার আবার এ বিষয়ে প্রচুর জ্ঞান। যেগুলো শুনে আমার ফ্যাসিনেটিং লাগল। তাই ‘গৌরঙ্গ ইতিকথা’ তৈরি করতে নেমে পড়লাম।”

আরও পড়ুন: নয়া মোড়কে মাতৃত্বের গল্প নিয়ে রেমা বসু

যদিও সৃজিতের এই ছবিতে যীশুকে নেওয়া নিয়ে উঠছে পক্ষপাতীতের প্রশ্ন। কিন্তু পরিচালকের সাফ কথা, “যে চরিত্রের জন্য যাকে মানানসই মনে হয় তাকেই নিই। আর চৈতন্যের ভূমিকায় দর্শকের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে এমন কাউকেই নিতে হতো।”

----
--