বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা পুলিশ সুপারের!

কানপুর : তাঁর ওপর শহরের আইন শৃঙ্খলা রক্ষার ভার৷ তিনি পুলিশ সুপার৷ কানপুরের মত বড় শহরে কর্মরত৷ সেই পুলিশ সুপার সুরেন্দ্র কুমার দাস বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন৷  বুধবার আশঙ্কা জনক অবস্থায় তাঁকে ভরতি করা হয় শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে৷ আপাতত চিকিৎসকদের কড়া নজরদারিতে হাসপাতালের ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে ভরতি তিনি৷ তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক, জানাচ্ছেন হাসাপাতালের চিকিৎসকরা৷

তাঁর শরীরে বিষের উপস্থিতির খবরের সত্যতা স্বীকার করেছে হাসপাতাল৷ চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন বিভিন্ন পরীক্ষার পরে সুরেন্দ্র কুমারের শরীরে বিষের সন্ধান মিলেছে৷

- Advertisement -

কানপুরের অতিরিক্ত ডিজি অবিনাশ চন্দ্র সাংবাদিকদের জানান, পুলিশের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে৷ কেন পুলিশ সুপার বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করলেন, তা খতিয়ে দেখা হবে৷ আদৌও এটা আত্মহত্যা করার চেষ্টা নাকি তাঁকে খুন করার চেষ্টা করা হয়েছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান অবিনাশ চন্দ্র৷

পুলিশ সুপার সুরেন্দ্র কুমারের পরিবার সূত্রে খবর আচমকাই বুধবার ভোর চারটের সময় তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে৷ সুরেন্দ্র কুমারের স্ত্রী একজন চিকিৎসক৷ তিনি স্বামীর অবস্থা দেখে তাঁকে বমি করানোর চেষ্টা করেন৷ পরে দ্রুত জেলা হাসপাতালে ভরতি করানো হয় তাঁকে৷ সেখানে স্টমাক ওয়াশ বা পাকস্থলী পরিস্কারের কাজ শুরু করেন চিকিৎসকরা৷

পরে তাঁকে বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করানো হয়৷ সেখানে তাঁকে কড়া পর্যবেক্ষণে রাখেন চিকিৎসকরা৷ শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় স্থানান্তরিত করা হয় আইসিইউতে৷ তবে এখনও তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল নয় বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷

এখনও তাঁর বিভিন্ন রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসা বাকি রয়েছে৷ তবে এরই মাঝে কানপুরের এসএসপি সঞ্জীব সুমনের মন্তব্য ঘিরে বিতর্ক ছড়িয়েছে৷ তিনি বলেন বেশ কিছুদিন ধরেই নাকি নানা পারিবারিক বিবাদে জড়িয়ে ছিলেন পুলিশ সুপার৷ এই নিয়ে মানসিক অবসাদেও ভুগছিলেন তিনি৷

Advertisement
---