সেনায় ভরতি হতে কাশ্মীরি যুবকদের ভিড়

শ্রীনগর : জম্মু কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে জঙ্গি হামলার পরে একাধিক জায়গায় কাশ্মীরিদের বিরোধ করা হয়েছে৷ তবে এই বিরোধের ঘটনাগুলি কোনও ভাবে কাশ্মীরি যুবকদের আত্মবিশ্বাস ভাঙতে পারেনি৷ মঙ্গলবার উত্তর কাশ্মীরের বারামুল্লায় সেনায় ভরতির প্রক্রিয়া চলছিল৷ আর সেই প্রক্রিয়ায় কাশ্মীরি যুবকেরা অংশগ্রহণ করতে বিশাল লাইনে দাঁড়ালো৷ তাদের কথায় পরিবার চালানো এবং দেশের সেবা একসঙ্গে করার এর থেকে ভাল সুযোগ আর কী হয়ে পারে৷

ভরতির প্রক্রিয়া আর্মির জম্মু কাশ্মীরের ডাভাশনের ১৮১ ইন্ফেন্ট্রি ব্যাটেলিয়ানের সদর দফতরে আয়োযিত করা হয়েছিল৷ এই জায়গা থেকে পুলওয়ামার দুরত্ব হল ঠিক ১০০ কিলোমিটার৷ যেখানে ১৪ই ফেব্রুয়ারি আত্মঘাতী হামলা হয়৷ একদিকে যেখানে দেশ সেবার জন্য চেষ্টা চালাচ্ছেন কাশ্মীরি যুবকেরা,অন্যদিকে ঠিক সেই সময়ে ভারতে ফের নাশকতা চালানোর হুমকি দিয়ে ভিডিও সামনে আনল জইশ-ই-মহম্মদ।

যে ভিডিওতে কালো কাপড় ঢাকা এক ব্যক্তিকে হুমকি দিতে শোনা যাচ্ছে। হুঁশিয়ারি দিয়ে সে জানাচ্ছে, জইশের যখন ইচ্ছা হবে তখনই পুলওয়ামার মতো ঘটনা ঘটাতে পারবে। একই সঙ্গে পুলওয়ামায় ঘটা ভয়ঙ্কর জঙ্গি হামলারও আবার দায় স্বীকার করে ওই জঙ্গি। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে সেই ভিডিও ইতিমধ্যে দেখানোও হচ্ছে।অন্যদিকে, জইশের নয়া এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই নড়েচড়ে বসেছে নিরাপত্তাবাহিনী। কোন সূত্র ধরে এই ভিডিও ভারতে আসল তা খতিয়ে দেখছে নিরাপত্তা বাহিনী।

- Advertisement -

পুলওয়ামা হামলার পর ঘটনার দায় স্বীকার করে পাকিস্তানের মদতপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ। স্বাভাবিকভাবেই আঙুল ওঠে পাকিস্তানের দিকে। মঙ্গলবার সকালে পাকিস্তানকে স্পষ্ট বার্তা দেয় ভারতীয় সেনা। এরপরই সংবাদমাধ্যমে ভাষণ দিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

এদিনই লেফটেন্যান্ট জেনারেল কনওয়ালজিত সিং ধিলোন বলেন, জইশ ই মহম্মদ পাকিস্তানেরই সন্তান৷ এই পুলওয়ামাকাণ্ডে পাকিস্তানি সেনার ১০০ শতাংশ হাত রয়েছে বলে জানান তিনি৷ তবে পাক অনুপ্রবেশ অনেকটাই কমে এসেছে বলে আশ্বস্ত করেন তিনি৷