ভগবানের আপন দেশে ইদের নমাজের জন্য খুলে গেল রক্তেশ্বরী মন্দির

প্রতীকি ছবি

তিরুঅনন্তপুরম: বিশ্ব জুড়ে পালিত হচ্ছে ইদ আল-আধা। সব মুসলিম সেই উৎসব পালন করছেন। সকালেই নমাজ পড়েছেন মসজিদে গিয়ে। কিন্তু ভারতের দক্ষিনের রাজ্য কেরলে ছবিটা একটু অন্যরকম। বানের জলে ভেসে গিয়েছে ঘর-বাড়ি। উৎসব তো দূরের কথা, নমাজ পড়ার জায়গাটুকু নেই। আর প্রকৃতির রোষের মুখে মুছে গিয়েছে সব ভেদাভেদ।

আনন্দ নেই, চোখে দুঃস্বপ্ন নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন কেরলের মুসলিমরা। শুধু মুসলিমরা নয় সবাই। হিন্দু, ক্রিশ্চান, প্রকৃতি তো কাউকে আলাদ করে দেখেনি। তাই হয়ত বোঝার সময় এসেছে যে, আদতে সবাই ভগবানের সন্তান। তাই মুসলিমদের নমাজের জন্য জায়গা করে দিলেন হিন্দুরাই।

আরও পড়ুন: অধিকাংশ মুসলিম অযোধ্যায় রাম মন্দির চান: উপমুখ্যমন্ত্রী

ভয়াবহ বন্যায় কেরলের ত্রিসুর যে জলের তলায়, সেকথা অনেকেই জানেন। বৃষ্টি থামলেও অবস্থার উন্নতি হয়নি খুব একটা। স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে এখনও অনেক দেরি। ডুবে আছে মসজিদগুলো। কোথায় প্রার্থনা করবেন সেটাই বুঝতে পারছিলেন না মুসলিমরা। তাই তাঁদের জন্য খুলে দেওয়া হল মন্দির। মুসলিমদের কোরবানির উৎসবে সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত তৈরি হল সেই ভারতেই, যেখানে নাকি বছরভর হিংসার গল্প উঠে আসে খবরের কাগজের পাতায়। সেই ভারতেই ইদের নমাজের জন্য মুসলিমদের নিয়ে যাওয়া হল মালার পুরাপ্পিল্লিকাভু রক্তেশ্বরী মন্দিরে।

স্থানীয়রা জানাচ্ছেন, সেখানকার সব মসজিদই এখনও জলের তলায়। তাই এই মন্দিরে নমাজের সুযোগ দেওয়ায় ধন্যবাদ জানিয়েছেন মুসলিমরা।

আরও পড়ুন: বানভাসিদের জন্য ২১০০০ টাকা তুলে দিলেন যৌনকর্মীরা

মন্দির কর্তৃপক্ষের গলাতেই সম্প্রীতির সুর। এক সদস্য বলেন, ”আমরা প্রথমে মানুষ। শুধু এই দুর্যোগের পরিস্থিতিতে নয়, আমাদের সবসময় মনে রাকা দরকার যে আমরা সবাই ভগবানের সন্তান। আগামিদিনে এই বার্তা যেন ছড়িয়ে পড়ে, সেটাই চাই। যারা একনও বিপদে রয়েছে, তাদের আমরা একসঙ্গে সাহায্য করতে চাই।”

বন্যার জেরে শয়ে শয়ে মানুষের মৃত্যু হয়েছে কেরলে। সাহায্যের জন্য হাত বাড়িয়ে দিয়েছে বিশ্বের একাধিক দেশ।