ঢাকা: জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় জামিন পেলেন খালেদা জিয়া। এপ্রিলের ৫ তারিখ পর্যন্ত জামিন পেয়েছেন তিনি। বুধবার ওই মামলার শুনানি ছিল। ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান এদিন এই নির্দেশ দেন।

এর আগে অসুস্থ থাকায় সকালে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বকশীবাজার বিশেষ আদালতে যাননি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আগামী ৫ এপ্রিল নতুন দিন ধার্য করে আদালত। এর মধ্যেয় খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা তাঁর জামিন বৃদ্ধির আবেদন করলে আদালত ৫ এপ্রিল পর্যন্ত তা মঞ্জুর করেছে।

আদালতের ডিসি প্রসিকিউশন আনিসুর রহমান জানান, বিচারকের নির্দেশ দিলেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করা হবে।

এর আগে গত ১৩ মার্চ বিচারক ড. আখতারুজ্জামান ২৮ ও ২৯ মার্চ খালেদা জিয়াকে জেল থেকে আদালতে হাজির করার জন্য নির্দেশ দেন। গত ২২ ফেব্রুয়ারি এই মামলায় প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট জারির আবেদন করা হয়। ওই আবেদনের উপর ২৬ ফেব্রুয়ারি ফের শুনানি হয়। ওই দিন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট জারির বিরোধিতা করেছিলেন। শুনানি শেষে ১৩ মার্চ আদালত খালেদা জিয়াকে হাজিরের আদেশ দেন।

টানা ৩৬ বছরের রাজনৈতিক জীবনে খালেদা জিয়া এর আগে একবার কারাগারে গিয়েছিলেন। ২০০৭ সালের ৩ সেপ্টেম্বর সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তখন তাকে জাতীয় সংসদ ভবন এলাকায় স্পিকারের বাসভবনকে সাবজেল বানিয়ে সেখানে রাখা হয়েছিল। ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর উচ্চ আদালতের এক আদেশে খালেদা জিয়া মুক্তি পান।

----
--