নতুন ফ্ল্যাট বা বাড়িতে পা রাখার পরই সব বাবা-মায়েদেরই চিন্তা শুরু হয় তাঁদের ছোট্ট সোনার ঘর কিভাবে সাজানো হবে তা নিয়ে ৷ ঘরের রং থেকে ফার্নিচার সব কিছু নিয়েই এক্সপেরিমেন্ট তখন তুঙ্গে ৷ এর ওপর আবার মাথায় রাখতে বাচ্চাদের ইচ্ছা-অনিচ্ছা ৷ এই সব ভেবে আর হিমশিম খাওয়ার দরকার নেই ৷ আপনার সন্তানের ঘর সাজানোর টিপস দিলেন ইন্টিরিয়র ডিজাইনার শ্রেয়জিৎ মুখোপাধ্যায়৷

 🙄 ওয়াল কালার

বাচ্চাদের রুম ডেকরের সময় সব থেকে Important যেটা, সেটা হল ঘরের রং ৷  ওয়াল কালার হিসেবে পিঙ্ক, ইয়েলো, ব্লু, গ্রিন, ল্যাভেন্ডার বাছতে পারেন ৷  রুমে ক্রিয়েটিভ টাচ্‌ দিতে  যেকোনো একটা ওয়ালে আপনার বাচ্চার হাতে আঁকা কোনো ছবি ওয়াল পেপার হিসেবে লাগাতে পারেন এছাড়াও, একটা দেওয়ালে আপনার ছোট্ট সোনার হাতের ছাপও লাগাতে পারেন ৷ আপনার সন্তানকে বলুন ছোটখাটো, শো-পিস, কার্ড, ফুল বা অন্য কিছু তৈরী করতে ৷ যেগুলো দিয়েও ঘর সাজাতে পারেন ৷ এতে ওর হাতের কাজের অ্যাপ্রিশিয়েশন হবে সেই সঙ্গে ঘরে ওদের তৈরী জিনিস থাকলে বাচ্চারা ঘরের যত্ন নিতে শিখবে৷

 

🙄 বিছানা

Advertisement

খাটের উচ্চতা বেশী না রাখাই ভালো কারন খাট থেকে পড়ে গেলে বাচ্চার লাগতে পারে ৷ মেয়েদের ক্ষেত্রে রাউন্ড শেপের বেড রাখা যেতে পারে ৷ যদি ২টো থাকে তাহলে দোতলা খাটও বেশ ভালো মানাবে ৷

🙄 আলো

বাচ্চাদের ঘরে জোড়ালো আলো হলেই ভালো হয় কারন কম আলোয় ওদের পড়াশোনা করতে অসুবিধে হবে ৷ ওয়াইট কালার লাইট –ই একদম পারফেক্ট কিড্‌স রুমের জন্য ৷

🙄 লাইব্রেরি

ছোট খেকেই ওদের পড়ার অভ্যাস তৈরী করতে হবে ৷ ঘরের একদিকের দেওয়ালে বই রাখার ব্যবস্হা করে দিন ৷ খুব একটা উচ্চতা বাড়াবেন না ৷ দেখবেন ওরা যেন নাগালের মধ্যে পায় ৷ ঘরের দেওয়ালে না হলে আলাদা করে বুক স্টোরেজ বানিয়ে দিন ৷

🙄 খেলার জায়গা

আপনার সন্তানের মন ভালো রাখার দায়িত্ব আপনার ৷ ঘরের একদিকে ওর খেলার জিনিস দিয়ে ওর একটা জগৎ তৈরী করে দিন ৷ সেখানে একটা মাদুর বিছিয়ে রাখতে পারেন যেটার ওপর বসে আপনার বাচ্চা আপন মনে খেলতে পারবে ৷

🙄 স্টোরেজ

জামাকাপড় এবং অনান্য জিনিস স্টোর করার জন্য মাল্টি পকেট অর্গানাইজারের ব্যবস্হা করুন ৷ যাতে এক জায়গাতেই সব জিনিস পাওয়া যায় ৷
এছাড়ও এখন বিভিন্ন থিমের ওপর বাচ্চাদের রুম ডেকর করা হচ্ছে ৷ যেমন, মিকি মাউস, টম অ্যান্ড জেরি ইত্যাদি ৷ এগুলোও ট্রাই করা যেতে পারে ৷

----
--