২০২০-তেই শহরে পাক খাবে কলকাতা আই

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: লন্ডন আইয়ের ধাঁচে শহরে তৈরি হবে কলকাতা আই, মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প৷ সেই প্রকল্প রূপায়ণে এবার তৎপর রাজ্য সরকার৷ মুখ্যমন্ত্রীর এই স্বপ্নের প্রকল্পে ঠিক কত টাকা ব্যয় হতে পারে, সম্প্রতি তা নিয়েই একটি নতুন টেন্ডার বের করল রাজ্য সরকার। তৈরি করা হবে গ্লোবাল ট্রানজ়াকশন অ্যাডভাইজ়ার।

সোমবার রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানান,”আমরা আবার একটা গ্লোবাল টেন্ডার বের করেছি। মূলত ট্রানজ়াকশন অ্যাডভাইজ়ার নিয়োগের জন্য এই টেন্ডার বার করা হয়েছে৷ এই ট্রানজ়াকশন অ্যাডভাইজ়ারই ঠিক করবে সরকারের ৩০০ কোটি বাদ দিলে আর কত টাকা খরচ হবে’’

অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র আগেই জানিয়েছিলেন, কলকাতা আই তৈরির জন্য ৩০০ কোটি টাকা দেবে রাজ্য সরকার। বাকি কত টাকা লাগবে, সেই টাকার পরিমাণ ঠিক করবে ট্রানজ়াকশন অ্যাডভাইজ়ার। মূলত সেইজন্যই এই টেন্ডার বের করল রাজ্য৷

গত ৯ ডিসেম্বর কলকাতা আই-র টেন্ডার প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণের শেষ দিন ছিল। টেন্ডার খোলা হয় আগামী ১১ ডিসেম্বর। দুটো টেন্ডারেরই বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছিল। একটি ফিনানশিয়াল টেন্ডার অন্যটি মেন্টেনেন্স টেন্ডার। রাজ্যের তরফে জানানো হয়েছিল, যারা মেন্টেনেন্স টেন্ডার পাবে, তাদের আই সংলগ্ন পার্ক ও আইয়ের পরিকাঠামোগত দায়িত্ব নিতে হবে।

এরপর কলকাতা আইয়ের জন্য আরও ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়৷ মোট টাকার পরিমাণ দাড়ায় ৪০০ কোটি টাকা। কেএমডিএর এক আধিকারিক জানান, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের কারণে সেই খরচ আরও বেড়ে যায়।

উচ্চতায় ১৩৫ মিটার। ব্যাস ১২০ মিটার। একবার পাক খেতে সময় লাগবে প্রায় ৪৫ মিনিট। তবে পুরো কাজটাই হবে অ্যাসেম্বেল পদ্ধতিতে। যন্ত্রাংশ বানানো হবে অন্য জায়গায়। তারপর সেসব নির্দিষ্ট স্থানে জোড়া লাগানো হবে।

রাজ্যের তরফে এই প্রকল্প নেওয়া হয় অনেক আগেই৷ কিন্তু কিছু সমস্যা তৈরি হওয়ায় এতদিন তা আটকে ছিল৷ কি রকম সমস্যা? মূলত উচ্চতা নিয়ে প্রথম থেকেই একটা সমস্য তৈরি হয়৷ মিলেনিয়াম পার্কের সামনে এই কলকাতা আই তৈরির কথা হয়৷ কিন্তু সেখানে সমস্যার জন্য এর উচ্চতা কমানোর ভাবনাচিন্তাও করা হয়েছিল। দ্বিতীয়ত, কেন্দ্র এবং পরিবেশ সংক্রান্ত সমস্যায় এতদিন আটকে ছিল প্রকল্পটি। তবে এখন নতুন করে আরও আধুনিক প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে লন্ডন আইয়ের সমান উচ্চতাতেই হবে কলকাতা আই।

পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, ‘‘অপেক্ষার আর বেশিদিনের নয়৷ টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হলে দ্রুত কাজ শুরু করে দেওয়া হবে। সব ঠিক থাকলে ২০২০ সালের মধ্যে শহরে পাক খাবে কলকাতা আই।’’ তবে যতক্ষণ না কলকতা আই-এর জন্য কোনও পারমানেন্ট মেন্টেনেন্স টিম পাওয়া যাচ্ছে, চিন্তা থেকেই যাচ্ছে। কারণ, মেন্টেনেন্সের অভাবে বন্ধ হতে বসেছে সিঙ্গাপুর আই। তাই সেই দিকটিও ভাবাচ্ছে রাজ্যকে৷

----
-----