কলকাতা : ‘গার্লফ্রেন্ড’ ছবির দুটি গানই সুপারহিট৷ ইতিমধ্যে এক-দুই মিলিয়ন ভিউজও ছাড়িয়ে গিয়েছে৷ ছবির গান, বনি-কৌশানির কেমিস্ট্রি দর্শকদের ভরপুর এন্টারটেন তো করেই চলেছে পাশাপাশি তাঁদের ব্যক্তিগত কনভারসেশনও এখন নেটিজেনদের বিনোদনের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ কৌশানির একটি ছবি আপলোড করার পরই তাঁদের দুষ্টু-মিষ্টি প্রেমালাপ গসিপের টপিক৷ ‘গার্লফ্রেন্ড’ ছবির ফোটোশ্যুটের ছবি আপলোড করেছিলেন কৌশানি৷ সেই শ্যুটের এক্সক্লুসিভ সব ছবি কৌশানির কাছে রয়েছে৷

তবে বনি নাকি একটা ছবিও পাননি৷ যথারীতি নিজের প্রেমিকার কাছে ছবিগুলো চাইলেন৷ কিন্তু কৌশানি সুযোগ পেতেই বয়ফ্রেন্ডের লেগ পুল করে ফেললেন, আর সেটাই এখন নেটদুনিয়ায় ভাইরাল৷ কেষ্ট পেতে গেলে কষ্ট যে করতে হয় বুঝিয়ে দিলেন কৌশানি৷ সরাসরি বলে দিলেন, “সব ছবি পাবে কিন্তু তার আগে আমায় প্যাম্পার করতে হবে৷” প্রেমিকা হয়ে এইটুকু আবদার করা খুবই সাধারণ৷ প্রসঙ্গত সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে ছবিটির নতুন গান ‘আলতো ছুঁয়ে’৷ যা মুক্তি পেতেই চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে এক মিলিয়ন ভিউজ ছাড়িয়ে গিয়েছে৷ ‘আলত ছুঁয়ে’ মুক্তি পেতেই প্রেমের সেই পুরনো স্বাদ পেয়েছে সাইবারবাসী৷ বাড়ির কোনও এক অনুষ্ঠানে সকলে ব্যস্ত বিভিন্ন কাজে৷ সেই ফাঁকে ছাদের ওপর, বাকিদের চোখের আড়ালে গিয়ে কৌশানির সঙ্গে প্রেম করছেন বনি৷

ছবি: ইনস্টাগ্রামের সৌজন্যে

যদিও রিয়েল লাইফে বেশ নিজেদের সম্পর্ক নিয়ে বেশ ভোকাল তাঁরা৷ এই লুকনো প্রেমটা রিলের জন্য৷ সেখানেও কোথাও তাঁদের কেমিস্ট্রির অভাব রইল না৷ টলিপাড়ার কিউটেস্ট কাপেলদের মধ্যে তাঁরা যে একজন তা বলাই বাহুল্য৷ গানটির অনেকগুলি প্লাসপয়েন্ট রয়েছে৷ তার মধ্যে প্রথমটাই হল নতুন প্রজন্ম রিলেট করতে পারবে এই গানের সঙ্গে৷ আর পাঁচটা সাধারণ ছেলেমেয়েদের মতোই পোশাক এবং সাজগোজ করেছেন নায়ক-নায়িকা৷ বিদেশের কোনও একজটিক লোকেশন নয়৷

ছবি: ট্যুইটারের সৌজন্যে

আলো দিয়ে সাজানো বাড়ির ছাদে প্রেমালাপ চলছে দু’জনের৷ ছাদে টাঙানো জামাকাপড়, দোলনা, জলের ট্যাঙ্ক, এসবই তাঁদের গানের প্রপ৷ তবে লুকিয়ে প্রেমর সাইড এফেক্ট হল ধরা পড়ে যাওয়ার ভয়৷ ঠিক একজন উঠে এলেন ছাদে৷ তবে তাঁদের ধরতে গিয়েও পারলেন না৷ ‘গার্লফ্রেন্ড’ ছবিতে যে বনি-কৌশানির প্রেম তেমন সহজ নয় তা এই গানের মধ্যে দিয়েই বোঝা যাচ্ছে৷ ইতিমধ্যেই ‘আলতো ছুঁয়ে’ ট্র্যাকটি কিন্তু নেভার হার্ড বিফোরের তালিকায় চলে গিয়েছে৷ বাংলা কমার্শিয়াল ছবিতে এমন গান আগে হয়নি৷ গায়ক-গায়িকার গলাও বেশ ইউনিক৷ এমনকি সুরেও বেশ অভিনবত্ব রয়েছে৷ জিৎ গাঙ্গুলির রয়েছেন ছবির সঙ্গীত পরিচালনায়৷ গানটি গেয়েছেন ইয়াসের দেসাই এবং আকাঙ্খা শর্মা৷ ট্র্যাকটির লিরিসিস্ট ছবির পরিচালক রাজা চন্দ৷

----
--