কলকাতা: রাজ্যে কৃষকদের অভাব দুর্দশার মধ্যে দিন কাটালেও তার দিকে নজর না দিয়ে উল্টে গত ছয় বছরে কৃষকদের আয় আড়াই গুণ বলে দাবি করছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ যা কৃষকদের নিয়ে তামাশা করা ছাড়া আর কিছু নয় বলে অভিযোগ তুলেছে এ রাজ্যের কৃষক সমাজ৷ মুখ্যমন্ত্রীর এমন হাস্যকর ঠাট্টা তামাশার জন্য তার ক্ষমা-প্রার্থনা দাবি করেছে পশ্চিমবঙ্গ প্রাদেশিক কৃষকসভা।

বিবৃতিতে মারফত প্রাদেশিক কৃষকসভার সম্পাদক অমল হালদার জানিয়েছেন, মাঠে উদয়াস্ত ঘাম ঝরিয়ে ফলানো ফসলের দাম না পেয়ে রাজ্যের অভাবী কৃষক যখন ঋণের জ্বালায় জ্বলছেন তখন তাঁদের নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর এহেন তামাশায় স্বাভাবিক ভাবেই ক্ষোভ বাড়ছে কৃষক সমাজের।

Advertisement

উল্লেখ্য এদিনই সংবাদমাধ্যমে রাজ্যে কৃষকদের আয় বেড়েছে সংক্রান্ত প্রতিবেদনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির এক প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, । পশ্চিমবঙ্গ প্রাদেশিক কৃষকসভার অভিমত, মুখ্যমন্ত্রীর ২০১০সালে রাজ্যে কৃষকদের যে আয় ছিল তা বেড়ে আড়াই গুণ হয়েছে বলে দাবি করলেও বাস্তবের সঙ্গে তার কোনও মিলই নেই। কারণ গত দু-তিন বছর ধরে রাজ্য খরা অথবা বন্যা কবলে পড়তে হয়েছে কৃষকদের আরে সেটাই মুখ্যমন্ত্রী বা তাঁর প্রশাসন সে ব্যাপারে কোনও খোঁজই রাখে না।

পাশাপাশি কৃষকসভা জানিয়েছে, গত সাড়ে ৬বছর ধরে নতুন সমস্যা হিসেবে যোগ হয়েছে ফড়েদের দাপট। দেখা গিয়েছে ধান, পাট, আলু, সবজি যাবতীয় ফসল ফলাতে কৃষকের যে খরচ হয়েছে তা বিক্রি করে দাম ওঠেনি। ফসলের দাম না পেয়ে চাষিরা বিক্ষোভও দেখিয়েছে৷ ফলে প্রশ্ন তুলেছে – সেইসব ছবি কি মুখ্যমন্ত্রীর দূরবিনে ধরা পড়েনি? সেই প্রেক্ষিতে কৃষকদের নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর হাস্যকর বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছে ২০১১সালের কৃষকের বার্ষিক আয় ছিল ৯১,০০০ টাকা, আর ২০১৬-১৭ সালে এই আয় বেড়ে হয়েছে ২লক্ষ ৩৯হাজার টাকা।

----
--