কোয়েটা: ভারত সরকার আগেই জানিয়েছে প্রাক্তন নৌসেনা অফিসার কুলভূষণ যাদবকে ইরান থেকে অপহরণ করে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল৷ তার বিরুদ্ধে চরবৃত্তির অভিযোগ এনে পাক সরকার মৃত্যু দণ্ডের আদেশ দিয়েছে৷ ভারতের এই যুক্তি এবার পাকিস্তানেও ছড়িয়ে পড়ল৷ বালোচ বিদ্রোহী নেতা মামা কাদির বিবৃতি দিয়ে জানালেন, ওই ভারতীয়কে ইরান থেকেই অপহরণ করা হয়৷

কুলভূষণ যাদব ইরানে ব্যবসা করতেন৷ তিনি কী করে পাকিস্তানে প্রবেশ করবেন এই বিষয়টি নিয়ে শোরগোল আগেই পড়ে যায়৷ কারণ কোনও ভারতীয় যিনি সেনাবাহিনীর কর্মী বা পুলিশ বিভাগে কাজ করেন তাকে পাকিস্তান সরকার ভিসা দেয় না৷ সেক্ষেত্রে ইরান সীমান্ত পার করে সরাসরি পাকিস্তানে ঢোকার উপায় নেই কুলভূষণ যাদবের৷

Advertisement

ইরানের সিস্তান-বালুচিস্তান প্রদেশ লাগোয়া পাকিস্তানের বালোচিস্তান প্রদেশ৷ দুই দেশের এই সীমান্তে অনুপ্রবেশ রুখতে কড়া নিরাপত্তা রয়েছে৷ সেক্ষেত্রে অবৈধ উপায়ে প্রবেশ করা যেতে পারে৷ কুলভূষণের মতো প্রাক্তন সেনা কর্মী পাকিস্তানে অবৈধ উপায়ে ঢুকতে পারেন না এই বিষয়টিও ভারত সরকার উথ্থাপন করেছে৷ যদিও পাকিস্তানের সামরিক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই এর দাবি, সীমান্ত টপকে বালোচ বিদ্রোহীদের মদত দিতে কুলভূষণ প্রবেশ করেছিল৷ এই বিষয়ে তারা যে তথ্যপ্রমাণ দাখিল করেছে তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে৷

বালোচ বিদ্রোহী নেতা এক টিভি সাক্ষাৎকারে কুলভূষণ যাদব প্রশ্নে ভারতের দাবিকে সমর্থন জানান৷ বলেন, মুল্লা ওমর নামে এক পাক জঙ্গি কুলভূষণকে ইরান থেকে ধরে আনে৷ সেই কুলভূষণকে পাকিস্তান সেনার হাতে তুলে দেয়৷ তাকে মিথ্যা অভিযোগে ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়৷ তার উপর নীপিড়ন করা হয়৷ জোর করে কুলভূষণকে দিয়ে স্বীকার করিয়ে নেওয়া হয় বালোচিস্তানে অশান্তির জন্য তার হাত রয়েছে৷ কিন্তু বাস্তব হল বালোচিস্তানে কোনও সন্ত্রাস কার্যকলাপে জড়িত নন যাদব৷

একই সঙ্গে তিনি এটাও জানান, বহিরাগত কারোর পক্ষে বালোচিস্তানে প্রবেশ করা অসম্ভব৷ বিশেষ করে সেই ব্যক্তি যদি কোন সেনা ও পুলিশ বিভাগে কাজ করেন৷ পাশাপাশি বালোচিস্তানে অশান্তির বাতাবরণ তৈরির জন্য পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই ও মিলিটারি ইনটেলিজেন্সকে কাঁঠগড়ায় দাঁড় করান৷ বলেন, পাকিস্তানের কারণে বালোচে পরিস্থিতি খারাপ থেকে অতি খারাপের দিকে যাচ্ছে৷ পাকিস্তানকে জঙ্গি উৎপাদন তৈরির কারখানা বলেও কটাক্ষ করেন তিনি৷ বলেন, পাকিস্তান হাফিজ সইদ ও সইদ সালাবুদ্দিনের মতো জঙ্গি তৈরি করতে পারে৷

----
--