মশা-মাছি-কুকুরের জ্বালায় অতিষ্ঠ লালু চান ওয়ার্ড বদল

ফাইল ছবি

রাঁচি: পশু খাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায় দোষী সাব্যস্ত বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী রাঁচি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে চিঠি লিখে তাঁর ওয়ার্ড বদলের আর্জি জানিয়েছেন৷ ঘর বদলের কারণ দর্শিয়ে ধরিয়ে দিয়েছেন এক লম্বা তালিকা৷ তাতে বলা হয়েছে, কুকুরের চিৎকারে তিনি অতিষ্ঠ৷ তার উপর রয়েছে ওয়ার্ডে মশার উৎপাত৷ মরার উপর খাড়ার ঘা হাসপাতালের নোংরা ওয়ার্ড৷ শৌচালয় তো ব্যবহারেরও অযোগ্য৷ এই সব নানা কারণে তিনি তিতিবিরক্ত৷ তাই চান ঘর বদল৷

আরজেডি নেতা লালুর চিকিৎসা চলছে রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে৷ দলের বিধায়ক ও জাতীয় সাধারণ সম্পাদক ভোলা যাদব সংবাদসংস্থা পিটিআইকে জানিয়েছেন, লালুর ঘরের শৌচালয়ে নিকাশি পাইপের মুখ আটকে যাওয়ায় জল বেরতে পারছে না৷ তার জেরে ঘরে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে৷ তিনি এমনিতেই সংক্রমণ জাতীয় রোগে ভুগছেন৷ কিন্তু ওয়ার্ডের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তিনি আরও অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন৷

- Advertisement -

জানা গিয়েছে, লালুর ওয়ার্ডের পাশেই একটি ঘর আছে যেখানে ময়নাতদন্ত করা হয়৷ সবসময় সেখানে কুকুরের ভিড় লেগেই থাকে৷ দিনরাত তারা তারস্বরে চিৎকার করে৷ কুকুরের চিৎকারে ঠিকমতো বিশ্রাম নিতে পারেন না লালু৷ তাই ঘর বদলের অনুরোধ করা হয়েছে রাঁচি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে৷

আরও পড়ুন: ধেয়ে আসছে টাইফুন জেবি, বাতিল ৬০০ উড়ান

রাঁচি হাসপাতালে নতুন ওয়ার্ড চালু হয়েছে৷ এই ওয়ার্ডটি অনেক পরিস্কার পরিচ্ছন্ন৷ কুকুর, মশা মাছির উৎপাতও এখানে তুলনামূলক কম৷ তাই আরজেডি নেতারা চান লালুকে এই ওয়ার্ডে স্থানান্তরিত করা হোক৷ তবে এই ওয়ার্ডে থাকার জন্য ভাড়া দিতে হবে৷ তাতেও রাজি আরজেডি নেতারা৷ এক নেতা জানিয়েছেন, লালু যখন এইমসে ছিলেন তখনও তাঁর ঘরের বিল মেটানো হয়েছিল৷

এদিকে হাসপাতালের লালুর অস্বচ্ছন্দতা নিয়ে কটাক্ষ করেছে নীতীশের দল৷ জানিয়েছে, বিহারে যখন তিনি ক্ষমতায় ছিলেন তখন রাজ্যের মানুষের জীবন নরকে পরিণত করে ছেড়েছিলেন৷ অপরাধের হার বেড়ে গিয়েছিল৷ বিহারের মানুষ অস্বচ্ছন্দে দিন কাটাত৷ এখন তাঁকে সেই সব সহ্য করতে হচ্ছে৷

Advertisement ---
---
-----