ভাড়াটেদের অনুপস্থিতিতে বাড়িতে হামলা বাড়িওয়ালার

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: বিবাদের জেরে ভাড়াটেদের অনুপস্থিতিতে আসবাবপত্র ও ঘরের দরজা ভেঙে রাস্তায় ফেলে দিল বাড়িওয়ালা৷ চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগণার বেলঘরিয়া থানার মাতৃপল্লী এলাকায়৷ খবর পেয়ে বেলঘরিয়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ভাড়াটেদের আসবাবপত্র ঘরে তোলেন৷

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, বেলঘরিয়ার মাতৃপল্লীতে বাড়িওয়ালা রায় পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ভাড়াটে দীপালি দাস ও মঞ্জু ঘোষের পরিবারের সদস্যদের বিবাদ দীর্ঘদিনের। রায় বাড়িতে বর্তমানে বসবাস করেন সুশান্ত রায় ও রঞ্জিতা রায়ের পরিবার। ওই বাড়িতেই ভাড়া থাকেন দীপালি দাস ও মঞ্জু ঘোষের পরিবার।

অভিযোগ, বুধবার রাতে ওই বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ ছিল না৷ তাই রাতে ভাড়াটে দুই পরিবার অন্যত্র থাকতে গিয়েছিলেন। সেই সুযোগে পুরনো শত্রুতার জেরে সুশান্ত বাবু ও তার পরিবারের সদস্যরা ওই দুই ভাড়াটিয়ার ঘর ভাঙচুর করে৷ ঘর থেকে সমস্ত আসবাবপত্র রাতের অন্ধকারে রাস্তায় বের করে দেন।

স্থানীয় সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, সুশান্ত রায়ের পরিবার ওই দুই ভাড়াটের পরিবারকে বাড়ি থেকে ওঠাতে চেয়েছিলেন৷ অবশেষে তা না করতে পেরে আইন নিজেদের হাতে তুলে নিলেন রায় পরিবার৷ বৃহস্পতিবার সকালে দীপালি দেবী ও মঞ্জু ঘোষের পরিবার বাড়িতে আসে৷ তাঁরা এসে দেখেন তাদের ঘরের দরজা ভাঙা৷ ঘরের সমস্ত আসবাবপত্র বাইরে বের করে দিয়েছে বাড়িওয়ালা রঞ্জিতা রায়ের পরিবার।

দুই ভাড়াটিয়া পরিবারের অভিযোগ, তাঁরা গত ১২ বছর এই বাড়িতে ভাড়া থাকেন। এই বাড়িটির প্রকৃত মালিক ছিলেন সুশান্তর দাদা প্রশান্ত রায়। গত পাঁচ বছর আগে প্রশান্ত রায় মারা যান। প্রশান্তই মঞ্জু ও দীপালির পরিবারকে ভাড়া দিয়েছিলেন। কিন্তু প্রশান্তর মৃত্যুর পর তার স্ত্রী গায়ত্রী দেবীকে অত্যাচার করে তাড়িয়ে দেন সুশান্তর পরিবার। তারপর থেকে দুই ভাড়াটেকেও বাড়ি থেকে উচ্ছেদের পরিকল্পনা করে ছিলেন রায় পরিবার। তাই ভাড়াটেদের অনুপস্থিতে ঘরের দরজা ভেঙে সমস্ত আসবাবপত্র বাইরে ফেলে দিয়েছে। ঘরের অনেক দামি জিনিস খুঁজে পাচ্ছেন না তাঁরা৷

এদিকে বাড়িওয়ালা রঞ্জিতা রায় বলেন, ‘দুই ভাড়াটে নিজেদের মালিক ভেবে বসেছেন। আমার ভাসুরের মৃত্যুর পর আমার জা নিজেই অন্যত্র থাকেন। ওরা বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দিয়েছে। আমাদের দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছে। বাধ্য হয়ে আমরা ওদের জিনিসপত্র বাইরে ফেলেছি।’

বাড়িওয়ালা সুশান্ত রায়ের পরিবারের বিরুদ্ধে লুঠতরাজ চালানোর অভিযোগ এনেছে দুই ভাড়াটে পরিবার। বেলঘরিয়া থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

Advertisement
----
-----